গ্রেফতার হলেন অভিনেত্রী রাখি সাওয়ন্ত। তাঁর বিরুদ্ধে পঞ্জাব পুলিশ গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেছিল দিন কয়েক আগেই। কালকে খবর মিলেছিল যে, লুধিয়ানা পুলিশের দু’জন প্রতিনিধি রাখিকে গ্রেফতার করার জন্য লুধিয়ানা থেকে মুম্বইয়ের উদ্দেশে রওয়ানা হয়েছিলেন। আজ, মঙ্গলবার, একটি সর্বভারতীয় সংবাদসংস্থা মারফত খবর মিলল যে, রাখিকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তাঁর বিরুদ্ধে ধর্মীয় ভাবাবেগে আঘাত হানার অভিযোগ আনা হয়েছে।

বছর খানেক আগে এক বেসরকারি টিভি চ্যানেলের একটি অনুষ্ঠানে যোগ দিয়েছিলেন রাখি। সেই অনুষ্ঠানেই ক্যামেরার সামনে রামায়ণ-রচয়িতা হিসেবে পরিচিত বাল্মীকিকে নিয়ে তিনি কিছু মন্তব্য করেন। সেই মন্তব্যে ক্ষুব্ধ হন বাল্মীকি গোষ্ঠীর মানুষজন। রাখির বিরুদ্ধে ধর্মীয় ভাবাবেগে আঘাত হানার অভিযোগ এনে থানায় অভিযোগ দায়ের করা হয়। কেস কোর্টে উঠলে রাখিকে কোর্টে হাজির হওয়ার নির্দেশ দেয় লুধিয়ানা আদালত। কিন্তু রাখি কোর্টে হাজির হননি। গত ৯ মার্চ ছিল শেষ শুনানির দিন। সে দিনও রাখি কোর্টে অনুপস্থিত থাকায় তাঁর বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারির নির্দেশ দেয় কোর্ট। তারই পরিপ্রেক্ষিতে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করা হয় রাখির নামে। আগামী ১০ এপ্রিল শুনানির পরবর্তী দিন ধার্য করা হয়েছিল। কিন্তু তার আগেই গ্রেফতার হলেন তিনি।

পঞ্জাব পুলিশের প্রতিনিধিরা তাঁকে গ্রেফতার করার জন্য রওয়ানা হয়েছেন জানার পরে সোশ্যাল মিডিয়ায় নিজের মন্তব্যের জন্য রাখি ক্ষমাও চেয়েছিলেন। তাঁর বক্তব্য ছিল, তিনি যে হেতু ক্ষমা চেয়ে নিয়েছেন, সে হেতু বিষয়টির সেখানেই নিষ্পত্তি হয়ে গিয়েছে। কিন্তু পুলিশ তাঁর ক্ষমাপ্রার্থনার বিষয়টিকে গুরুত্ব দেয়নি। গ্রেফতার করা হয়েছে রাখিকে। জানা গিয়েছে, এর পর প্রথমে তাঁকে মুম্বই আদালতে পেশ করা হবে। তাতে যদি বিষয়টির মীমাংসা না হয়, তা হলে রাখিকে লুধিয়ানা আদালতে পেশ করা হবে।

বিভিন্ন বিষয়ে বিস্ফোরক মন্তব্য করার জন্যও আগেও বহু বার সমালোচিত হয়েছেন রাখি সাওয়ন্ত। কিন্তু এ রকম চরম মূল্য কোনও বারই চোকাতে হয়নি তাঁকে। এই আইনি হেনস্থার পরে তিনি তাঁর মুখে লাগাম পরাবেন কি না, সেটাই এখন দেখার।