মোবাইল এবং ইন্টারনেট পরিষেবার ফোর-জি প্রযুক্তির স্বাদটা কেমন? সেটাই নাকি তাঁরা সাধারণ ভারতবাসীকে বোঝাতে চায়। আর সেই জন্য বাজারে ছাড়া হয়েছে ‘ফ্রি ওয়েলকাম অফার’। সেপ্টেম্বরে জিও-এর আনুষ্ঠানিক প্রকাশে এমনটাই জানিয়েছিলেন রিলায়েন্স ইন্ডাস্ট্রির কর্ণধার মুকেশ অম্বানী। কিন্তু, কার্যক্ষেত্রে গ্রাহকদের ফোর জি পরিষেবার স্বাদটাই ঠিকমত দেওয়া যায়নি বলে অভিযোগ আনে জিও। আর এর জন্য, এয়ারটেল, ভোডাফোন এবং আইডিয়া সেলুলারের দিকে আঙুলও তোলে তারা। জিও-র অভিযোগ ছিল, এয়ারটেল, ভোডাফোন এবং আইডিয়ার জোটবদ্ধ ষড়যন্ত্রে গ্রাহকদের ফোর জি-র পরিষেবা ঠিক করে দেওয়া যাচ্ছে না। ফলে হুহু করে গ্রাহক বাড়ালেও ‘ফ্রি ওয়েলকাম অফার’ কার্যত মুখ থুবড়ে পড়েছে বলেও অভিযোগ করে তারা। এই নিয়ে ট্রাই-এর কাছে নালিশও করেছিল জিও।  

তাই জিও ‘ফ্রি ওয়েলকাম অফার’-এর মেয়াদ বাড়াতে বদ্ধপরিকর। ৩ ডিসেম্বর এই নিয়ে ঘোষণা করতে পারে জিও। জোর জল্পনা ‘ফ্রি ওয়েলকাম ২’ নামে এই অফারকে আরও ৯০ দিনের জন্য বাজারে নিয়ে আসতে পারে তারা। 

এই ঘোষণার আগে এয়ারটেল, ভোডাফোন এবং আইডিয়া সেলুলারের বিরুদ্ধে ‘কম্পিটিশন কমিশন অফ ইন্ডিয়া’ বা সিসিআই অভিযোগ দায়ের করেছে রিলায়েন্স জিও। সংস্থার পক্ষ থেকে এই নিয়ে কিছু বলা না হলেও সূত্রের খবর, এয়ারটেল, ভোডাফোন এবং আইডিয়ার বিরুদ্ধে সম্মিলিতভাবে জিও-র বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রের অভিযোগ আনা হয়েছে। রিলায়েন্স ইন্ডাস্ট্রির টেলকো এই অভিযোগ দায়ের করেছে। 

আরও পড়ুন.... 

কলকাতার গ্রাহককে ২৭,৭১৮ টাকার বিল ধরাল রিলায়েন্স জিও! 

রিলায়েন্স জিও-র মালকিনের বিয়ের আসল খবরটা ঠিক কী?

৫ সেপ্টেম্বর জিও-এর আনুষ্ঠানিক প্রকাশ অনুষ্ঠানের পর থেকেই এয়ারটেল, ভোডাফোন এবং আইডিয়ার বিরুদ্ধে অসহযোগিতার অভিযোগ আনে রিলায়েন্স। অভিযোগে বলা হয়েছিল, মিলিতভাবে এয়ারটেল, ভোডাফোন এবং আইডিয়া জিও-র পরিষেবাকে ব্যাহত করার চক্রান্ত করছে। এই নিয়ে ট্রাই থেকে শুরু করে, যোগাযোগ মন্ত্রক এবং কোয়াই-এ অভিযোগ দায়েও করে রিলায়েন্স। ট্রাই নিজেও বার বার এয়ারটেল, ভোডাফোন এবং আইডিয়া ও এয়ারসেলকে সতর্ক করে। ট্রাই জানিয়েছিল, এইসব মোবাইল পরিষেবা প্রদানকারী সংস্থাগুলি যেভাবে জিও-কে ইন্টারকানেক্ট পয়েন্টস দিচ্ছে না, তাতে টেলিকম লাইসেন্সের শর্ত ভঙ্গ করা হচ্ছে। এর জন্য এয়ারটেল, ভোডাফোন এবং আইডিয়াকে ৩০৫০ কোটি টাকাও জরিমানা করে ট্রাই। কিন্তু, এর পরেও এয়ারটেল, ভোডাফোন এবং আইডিয়া নানা কৌশলে জিও-র পরিষেবা ব্যাহত করতে হাত মিলিয়েছে বলে অভিযোগ আনে রিলায়েন্স। আর তাই এবার সিসিআই-এর দ্বারস্থ হল তাঁরা। মনে করা হচ্ছে, ‘ফ্রি ওয়েলকাম অফার ২’-এর হালও যাতে বেহাল না হয়, তার জন্য এবার আগে থেকে আটঘাট বাঁধছে রিলায়েন্স জিও।