ভারত-ইংল্যান্ড টেস্ট সিরিজ নিয়ে অনেক জল্পনাই চলছিল শুরু থেকে। প্রথম টেস্ট ড্র হওয়ার পরে অনেক প্রশ্ন উঠেছিল বিরাট কোহলির অধিনায়কত্ব নিয়েও। টেস্টে দল নির্বাচন ঠিক হয়নি— এমনটাও মনে করছিলেন অনেকে। তবে আপাতত  সমালোচকদের মুখ বন্ধ। তাঁদের  মুখের উপর জবাব দিয়েছে ভারতের পারফরম্যান্স। পাঁচ ম্যাচের সিরিজে আপাতত ২-০-য় এগিয়ে রয়েছে বিরাট বাহিনী। অর্থাৎ আর একটা ম্যাচ জিতলেই সিরিজ পকেটে। আবার বিরাট কোহলির গায়ে সফল অধিনায়কের তকমা। শেষ ম্যাচটি সেক্ষেত্রে জায়গা পাবে কেবল নিয়মরক্ষার খাতায়। 

এই টেস্ট সিরিজ নিয়েই মুখ খুললেন ভারতের প্রাক্তন অধিনায়ক সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়। একটি সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যমকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে তিনি যা বলেছেন, তা সত্যি হলে ভারতের জন্য মঙ্গলজনক বটে, কিন্তু লজ্জায় মুখ ঢাকবে গোটা ইংল্যান্ড দল। সঙ্গে ভারতীয় সমর্থকদের মনে আবার উস্কে দেবে গত নিউজিল্যান্ড টেস্টের ফলাফলটা, যেখানে হোয়াইট ওয়াশ হয়েছিল কিউয়িরা। সৌরভের কথায়, ‘ভারত একটা খেলা ড্র করেছে ঠিকই, কিন্তু এখন আর পিছনে তাকাবে না। ইতিমধ্যেই ২-০-য় এগিয়ে রয়েছে এবং‌ সম্ভবত ৪-০-র দিকেই এগোচ্ছে ’। 

অর্থাৎ ৪-০ যদি রেজাল্ট হয় এই সিরিজের, তবে ভারতের মাটিতে লজ্জাজনকভাবে সিরিজ হারবেন কুকরা। সৌরভ আরও জানিয়েছেন, ‘ভারত পরের দুটো ম্যাচেও ইংল্যান্ডকে চাপে রাখবে। কিন্তু এটা ভুললে চলবে না যে মুম্বই এবং চেন্নাই-এর বাউন্সি পিচের জন্য ইংল্যান্ড অ্যাডভান্টেজ পাবে।   বিশাখাপত্তনম আর মোহালিতে এই অ্যাডভান্টেজ ইংল্যান্ড পায়নি। বাকি দুটি টেস্টে‌ ইংল্যান্ড পিচের বাউন্সকে  কাজে লাগাবে।’

স্পিনের দিক থেকে ভারত যে এগিয়ে রয়েছে, তা অবশ্য মানছেন সৌরভ। তাঁর কথায়, ‘বাউন্সের সুবিধা পাওয়া সত্বেও ভারতকে  হারানোর জন্য ভাল খেলতে হবে ইংল্যান্ডকে। তারা স্পিনের দিক থেকে পিছিয়ে রয়েছে ভারতের থেকে। আমার মনে হয় না কেবলমাত্র পেস বোলারের উপর নির্ভর করে তারাভারতের ২০টা উইকেট তুলতে পারবে।’