আর কয়েক দিন পরেই মুক্তি পাবে জাহ্নবী কপূর অভিনীত প্রথম ছবি ‘ধড়ক’। 

স্বাভাবিক ভাবেই তাই খুবই ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন জাহ্নবী ও তাঁর সহ-অভিনেতা ইশান খাত্তের। ছবির প্রোমোশনের জন্য দেশের নানা শহরে ঘুরে বেড়াতে হচ্ছে এই জুটিকে। সঙ্গে রয়েছে প্রেস-মিট, একান্ত সাক্ষাৎকার, ফোটোশ্যুটও। 

এই বিষয়ে অন্যান্য খবর

সম্প্রতি তেমনই এক সাক্ষাৎকার চলছিল একটি সাজানো ক্লাসরুমে। সেখানেই জাহ্নবী খানিক সংশয় প্রকাশ করেন। তিনি বলেন, তাঁর মনে হচ্ছিল যেন পরীক্ষা দিতে এসেছেন তিনি।

সাক্ষাৎকারের সময় ইশানও সঙ্গে ছিলেন জাহ্নবীর। তাঁদের দুজনকেই পড়াশোনার বিষয়ে প্রশ্ন করলে, জাহ্নবী জানান যে তিনি দ্বাদশ শ্রেণির পরে আর পড়াশোনা করেননি। নিজেকে তিনি ‘সিভিয়ারলি আনএডুকেটেড’ বলে বর্ণনা করেন। 

সর্বভারতীয় এক সংবাদমাধ্যমের প্রতিবেদন অনুয়ায়ী, সেই সাক্ষাৎকারে ইশানও নিজেকে একই ভাবে ‘অশিক্ষিত’ বলেন।


‘ধড়ক’ ছবির পোস্টার। ছবি— জাহ্নবী কপূরের ইনস্টাগ্রাম পেজ

প্রসঙ্গত, বনি কপূরের আপত্তি না থাকলেও, শ্রী চেয়েছিলেন মেয়ে জাহ্নবী ডাক্তার হোক। কিন্তু, তিনি নিজে মনে করতেন যে ডাক্তার হওয়ার মতো মেধা তাঁর ছিল না। তাই অভিনয়কেই বেছে নেন নিজের কেরিয়ারের জন্য। 

বলিউডের প্রথম মহিলা সুপারস্টার শ্রীদেবীর বড় মেয়ে জাহ্নবী। বাবা, বনি কপূর প্রযোজক। অন্য দিকে, নবাগতা অভিনেত্রীর দুই কাকা, অনিল ও সঞ্জয় কপূরও অভিনয় জগতের তারকা। আর তাঁর প্রজন্মের রয়েছেন অনিল-কন্যা সোনম, রয়েছেন তাঁর সৎ-দাদা অর্জুন কপূরও।

ফলে এমন ‘ফিল্ম ব্যাকগ্রাউন্ড’ থেকে আসা মেয়ে যে ছবির জগতেই নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করার চেষ্টা করবেন, তাতে আর সন্দেহ কী!