কাঠগড়ায় মার্কিন রাষ্ট্রপতি। মার্কিন দেশের প্রথম সারির নীল ছবির নায়িকা এবং পরিচালিকা স্টর্মি ড্যানিয়েলসের সঙ্গে ডোনাল্ড ট্রাম্পের শারীরিক সম্পর্কের অভিযোগ। 

চাঞ্চল্যকর দাবি করেছেন পর্ন ছবির এই জনপ্রিয় নায়িকা। তাঁর দাবি, ২০০৬ সাল থেকে তাঁর সঙ্গে ডোনাল্ড ট্রাম্পের শারীরিক সম্পর্ক ছিল। এই দাবির কথা পরে বেশ কিছু সংবাদমাধ্যমেই প্রকাশিত হয়। আর এক পর্নস্টার  এলানা ইভানসও ট্রাম্প এবং স্টর্মির এই গোপন সম্পর্কের বিষয়ে সাক্ষ্য দিয়েছিলেন। 

এই বিষয়ে অন্যান্য খবর

মার্কিন রাষ্ট্রপতির সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক নিয়ে স্টর্মির এই দাবির বিপরীতে একটি সাক্ষাৎকারে ট্রাম্পের আইনজীবী মাইকেল কোহেন বলেছিলেন, ট্রাম্পের সঙ্গে স্টর্মির কোনও শারীরিক সম্পর্ক ছিল না। তবে তার কিছুদিনের মধ্যেই উলটো সুরে ধরেন আইনজীবী।

এই সাক্ষাৎকারের বেশ কিছুদিন পরে কোহেন আরও জানিয়েছিলেন, ২০১৬ সালে নভেম্বর মাসে ট্রাম্পের রাষ্ট্রপতি হিসেবে নির্বাচিত হওয়ার ১০ দিন আগে স্টর্মিকে নিজের আয় থেকে ১ লক্ষ ৩০ হাজার ডলার দিয়েছিলেন তিনি। 
রাষ্ট্রপতির সঙ্গে অতীতের শারীরিক সম্পর্ককে গোপন রাখার মূল্যস্বরূপ অভিনেত্রীকে এই টাকা দেন তিনি। কোহেনের এই পরস্পরবিরোধী মন্তব্য নিয়েই বিতর্ক তুঙ্গে ওঠে।

চলতি বছরের ২৭ ফেব্রুয়ারি স্টর্মির বিরুদ্ধে লস অ্যাঞ্জেলেস-এ গোপনে অর্থহীন বিচারের প্রক্রিয়া শুরু করিয়েছিলেন কোহেন। তবে এ বিষয়ে স্টর্মিকে কোনও নোটিস পাঠানো হয়নি। এই ঘটনার পরেই ক্যালিফোর্নিয়ায় স্টেট কোর্টে মামলা করেন স্টর্মি।

স্টর্মির দাবি, ট্রাম্পের সঙ্গে অতীতে শারীরিক সম্পর্ককে গোপন রাখার জন্য তাঁর সঙ্গে কোনও চুক্তিই করেননি কোহেন। মঙ্গলবার ক্যালিফোর্নিয়ায় স্টেট কোর্টে এমনটাই জানিয়েছেন স্টর্মির আইনজীবী মাইকেল আভেনাত্তি।