অভিনেত্রী জিয়া খানের আত্মহত্যার ঘটনায় আদিত্য পাঞ্চোলি-পুত্র এখনও আইনের ঘেরাটোপ থেকে মুক্ত হতে পারলেন না। উল্টে, তাঁর বিরুদ্ধে জমা দেওয়া চার্জশিটে সিবিআই স্পষ্টই জানিয়ে দিল, জেরার সময়ে অনেক কথাই গোপন করেছেন সূর্য।

সিবিআইয়ের দাবি, আত্মহত্যার আগে দীর্ঘসময় ধরে দুজনের মধ্যে তীব্র বাদানুবাদ হয়। ঠিক কোন বিষয়ে ঝগড়া চরমে ওঠে তা জানাননি সূর্য। শুধু তাই নয়, জিয়ার সঙ্গে তাঁর সম্পর্কের ক্ষেত্রে একাধিক তথ্য চেপে গিয়েছেন বলে উল্লেখ করা হয়েছে চার্জশিটে। 

এই ঘটনার তদন্তে সঠিকভাবে সহযোগিতা না-করাও অভিযোগ রয়েছে অভিনেতার বিরুদ্ধে। তদন্তের জন্য কোনওরকম বৈজ্ঞানিক পদ্ধতিতে সম্মতি দেননি সূর্য পাঞ্চোলি। পলিগ্রাফ, ব্রেন ম্যাপিং পরীক্ষার ক্ষেত্রে নিজে থেকে এগিয়ে আসেননি সূর্য, এমনই অভিযোগ করেছে সিবিআই।
 
২০১৩র ৩ জুন নিজের ফ্ল্যাটেই ঝুলন্ত অবস্থায় উদ্ধার হয় জিয়া খানের দেহ। প্রাথমিকভাবে এই ঘটনা আত্মহত্যা বলে মনে করা হলেও, জিয়ার পরিবারের তরফ থেকে তাঁর তৎকালীন প্রেমিক সূর্য পাঞ্চোলির বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করে। আত্মহত্যায় প্ররোচনা দেওয়ার অভিযোগ ওঠে সূর্য ও তাঁর পরিবারের বিরুদ্ধে। অভিযোগের ভিত্তিতে গ্রেফতার করা হয় আদিত্যপুত্রকে । পরে প্রমাণের অভাবে জামিন পায় সূর্য।