গয়না, সাজসজ্জা, পোশাকের প্রতি মেয়েদের যদি দুর্বলতা থাকে, সেই তালিকায় উপরের দিকেই থাকবে তাঁদের চুল। কারণ, ঘন, লম্বা চুলই মেয়েদের অন্যতম ‘অলঙ্কার’। আর টিনএজার বা যুবতী হলে তো কথাই নেই।

চুল চুরি হওয়ায় সম্প্রতি হয়রান হয়েছেন হরিয়ানার মহিলারা। একটি সর্বভারতীয় ইংরেজি দৈনিকের খবর অনুযায়ী, রাজস্থানের কোটার বাসিন্দা ১৬ বছর বয়সি এক কিশোরী নিজেই নিজের চুল কেটে ফেলেছে। তাও একটু-আধটু নয়, একেবারে ২৮ ইঞ্চি লম্বা ঘন লম্বা চুল। যার ফলে, ওই কিশোরীর মাথা এখন পুরোপুরি ন্যাড়া।

কিন্তু কেন এমন পদক্ষেপ নিল ওই কিশোরী? না, কোনও ঘটনার প্রতিবাদে এমন পদক্ষেপ নেয়নি সে। আসলে নিজের মাথার চুল এক ক্যানসার আক্রান্ত মহিলাকে দান করতে চায় জিয়া মেহতা নামে ওই কিশোরী।

দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্রী জিয়া আইআইটি কোটায় সুযোগ পাওয়ার চেষ্টা করছেন। ইন্টারনেটের মাধ্যমে মুম্বইয়ের বাসিন্দা এক ক্যানসার আক্রান্ত মহিলার কথা জানতে পারে সে। কেমোথেরাপি নেওয়ার ফলে ওই মহিলার মাথার সব চুল পড়ে গিয়েছিল। জিয়া জানতে পারে, চুল হারিয়ে ওই মহিলা মানসিকভাবে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছেন। হীনমন্যতাতেও ভুগছেন তিনি।

জিয়ার কথায়, ক্যানসার আক্রান্ত ওই মহিলার দুর্দশা তাঁর মনে ছুঁয়ে যায়। সেই কারণেই মহিলার মুখে হাসি ফোটাতে চেয়েছিল সে।

এই বিষয়ে অন্যান্য খবর

যেমন ভাবা, তেমন কাজ। নেট ঘেঁটে একটি স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার মাধ্যমে ওই মহিলাকে নিজের চুল দান করার বন্দোবস্ত করে জিয়া। ইতিমধ্যেই নিজের চুলও কেটে ফেলেছে সে। আমির খান অভিনীত ‘দঙ্গল’ ছবি থেকেও অনুপ্রেরণা পেয়েছে জিয়া। কারণ, সেই ছবিতে দেখানো হয়েছিল, কুস্তি লড়ার জন্য নিজেদের চুল কেটে ফেলেছে আমিরের দুই কুস্তিগীর মেয়ে।

কিন্তু, চুল কাটার পরে পরিচিতরা কী প্রতিক্রিয়া দেন, তা নিয়ে কিছুটা উদ্বিগ্ন ছিল জিয়া। যদিও, প্রথমে বাকরুদ্ধ হয়ে গেলেও চুল কাটার আসল কারণ জানার পরে জিয়াকে প্রশংসায় ভরিয়ে দিয়েছে তার সহপাঠীরা। জিয়ার কথায়, দেশের জন্য যে কোনওভাবে অবদান রাখতে চায় সে। ইঞ্জিনিয়ার হওয়ার স্বপ্ন দেখা জিয়ার জাতীয় পতাকার তিনটি রংই প্রিয়। তাঁর ইচ্ছা, মৃত্যুর পরে তার দেহ তেরঙ্গায় ঢাকা থাকবে। 

ইতিমধ্যেই স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার নির্দেশিকা মেনে নিজের চুল ওই ক্যানসার আক্রান্ত মহিলার ব্যবহারের জন্য ক্যুরিয়রের মাধ্যমে পাঠিয়ে দিয়েছেন জিয়া। এখন তার একটাই অপেক্ষা জিয়ার। যাঁর জন্য নিজের প্রিয় চুল কেটে ফেললেন, সেই মানুষটির হাসিমুখ যত তাড়াতাড়ি সম্ভব দেখতে চায় সে।