জ্যোতিষ শাস্ত্রে ‘ন্যাচুরাল এলিমেন্ট’ বা প্রকৃতিক উপাদান বলতে জল, বায়ু, অগ্নি ও পৃথিবীকে বোঝায়। এবং যে চারটি রাশি এই চার উপাদানের প্রতীকী, জ্যোতিষ শাস্ত্রে তাদেরকেই সব থেকে শক্তিশালী রাশি হিসেবে চিহ্নিত করেছে। 

বৈদিক শাস্ত্র অনুযায়ী বারোটি রাশি যথাক্রমে— মেষ, বৃষ, মিথুন, কর্কট, সিংহ, কন্যা, তুলা, বৃশ্চিক, ধনু, মকর, কুম্ভ ও মীন। এর মধ্যে সব থেকে ক্ষমতাসম্পন্ন চারটি সম্পর্কে দেনে নেওয়া যাক— 

মেষ— অগ্নির প্রতীক। 
এদের অফুরন্ত এনার্জি। কারোর উপর ভরসা করতে পারে না এরা। নিজেই সব কিছু করে ফেলতে চায়। 

বৃশ্চিক— জলের প্রতীক।
যারা এদের বিশ্বাসের মর্যাদা দেয়, তাদের প্রতি এরা অত্যন্ত বিশ্বাসী। কিন্তু, এদের কেউ আঘাত করলে তাদের প্রতি এদের মানসিক ভাবনা একেবারেই নেতিবাচক হয়ে যায়।

কুম্ভ— বাতাসের প্রতীক।
এরা নিজেদের আবেগ সম্পূর্ণ ভাবে গোপন করতে পারে। বারোটি রাশির মধ্যে এই রাশিই সব থেকে ‘বুদ্ধিমান’ রাশি বলে গণ্য করা হয়। এরা অত্যন্ত একগুঁয়ে স্বভাবের হয়।

মকর— পৃথিবীর প্রতীকী।
অন্যান্য সব রাশির তুলনায় এই রাশির ভাবনা শক্তি সব থেকে বেশি। এদের প্রগতিশীল ভাবনাই এদের এগিয়ে চলার শক্তি।

(ছবি—পিক্সঅ্যাবে)