ক্যানসারে আক্রান্ত হওয়া মানেই মৃত্যুর কালো ছায়ার মুখোমুখি হওয়া। এই রোগের নাম শুনলেই আজও মানুষ আঁতকে ওঠে। প্রতিনিয়ত বিজ্ঞানী ও চিকিৎসকরা এই রোগকে জয় করার ওষুধ আবিষ্কারের অবিরাম চেষ্টা করে চলেছেন। কিন্তু এই রোগ যতদিন না ধরা পড়ছে, ততদিন এই রোগের সঙ্গে মোকাবিলাও করা যায় না। কয়েকটি ক্যানসার রয়েছে, যেগুলিকে প্রথম পর্যায় সনাক্ত করা খুব কঠিন। 

এই বিষয়ে অন্যান্য খবর

• প্যানক্রিয়াটিক ক্যানসার— এই ক্যানসার সহজে ধরা পড়ে না, কারণ এতে রোগী কোনও ব্যথা অনুভব করেন না। ভিতরেই বাসা বাঁধতে থাকে এই ক্যানসার। 

• কিডনির ক্যানসার— এর উপসর্গগুলি দেখেও চট করে বোঝা যায় না। কোমরে ব্যথা, সারাদিন ক্লান্তি বোধ করা, প্রস্রাবে রক্ত। সাধারণ টেস্টে এই ক্যানসার ধরা পড়ে না। 

• ওভারিয়ান ক্যানসার— পেটের গভীরে থাকার কারণে এই ক্যানসার ধরা পড়ে না সহজে। মাত্র ২০ শতাংশ ধরা পড়ে। চতুর্থ স্টেজে যাওয়ার পরে এই ক্যানসার ধরা পড়ে। 

• যকৃতে ক্যানসার— এই ক্যানসারের কোনও উপসর্গ নেই। বিশেষ করে টিউমরটি যদি আকারে ছোট হয়। একেবারে শেষ পর্যায়ে গিয়ে এই ক্যানসার ধরা পড়ে। 

• ব্রেন ক্যানসার— মস্তিষ্কের ক্যানসারও ধরা পড়তে অনেকটা দেরি হয়ে যায়। ব্যক্তিত্বে পরিবর্তন, কথা জড়িয়ে যাওয়া, হাত-পা কাঁপা এই উপসর্গগুলি দেখলে অবশ্যই এমআরআই বা সিটিস্ক্যান করানো উচিত।