মনে পড়ে হলিউড ছবির ‘টাইটানিক’-এর শেষ সিকোয়েন্সের সেই দৃশ্যটি? যেখানে আটলান্টিকের অতল-শীতল জলে গলা পর্যন্ত ডুবে রয়েছেন জ্যাক। আর কোনওমতে একটা ছোট্ট কাঠের পাটাতনে তুলে দিতে পেরেছেন প্রেমিকা রোজ ডওসনকে। বরফ-শীতল জলে ঠকঠক করে কাঁপছেন জ্যাক। চোখে নেমে আসছে মৃত্যু ঘুম। রোজ সমানে জ্যাকের নাম ধরে ডেকে চলেছেন। কিন্তু, পারলেন না জ্যাক। আস্তে আস্তে আটলান্টিকের জলের তলায় মিলিয়ে গেলেন তিনি। রোজ আর জ্যাকের সেই বিয়োগান্তক পরিণতি আজও সিনেমাপ্রেমীদের মনে বাজে। আজও বাঙালির মনে পোস্টারের মতো সেঁটে রয়েছেন ‘রোজ’ চরিত্রের অভিনেত্রী কেট উইনস্লেট। 

‘টাইটানিক’ ছবিতে রোজের ভূমিকায় কেট উইনস্লেট

এহেন কেট বাস্তবজীবনেও এক্কেবারে প্রেমিক মানুষ বলেই পরিচিত। তাঁর একাধিক প্রেমের নমুনাও পাওয়া গিয়েছে। ১৯৯১ থেকে ২০১৬-র মধ্যে মোট ৪ বার বিয়ে এবং একটি লিভ-ইন সম্পর্ক হয়েছে কেটের। সেই কেট এবার নাকি তিতিবিরক্ত তাঁর বর্তমান স্বামী নেড রকএনরোল-এর উপরে। কেটের থেকে প্রায় বছর চারেকের ছোট নেড।   

আরও পড়ুন... 

হিমশৈলের ধাক্কা নয়, টাইটানিক ডোবার কারণ অন্য! 

টাইটানিকের জং ধরা লকারের চাবি বিক্রি হল অবিশ্বাস্য দামে

নেড রকএনরোল-এর উপরে এতটাই খেপেছেন কেট যে বিবাহ বিচ্ছেদের পথে হাঁটতে চলেছেন তিনি। ঘনিষ্ঠ বান্ধবীর কাছে কেট নাকি অভিযোগ করেছেন, নেড একদম বাচ্চাদের মতো আচরণ করেন। অলস, কোনও কাজ করেন না। বাড়ির খেয়াল তো রাখেনই না, এমনকী, কেট কাজ থেকে ফিরলে তার কী দরকার না দরকার কিছুই জিজ্ঞেস করেন না নেড। বিখ্যাত ব্রিটিশ শিল্পপতি রিচার্ড ব্রানসনের ভাইপো নেড। কেটের অভিযোগ, কাকার কামানো অর্থতে ফুটানি মারাটাই নেডের কাজ। কেটের আরও অভিযোগ, নিজেকে কখনও সফল হিসাবে দেখতে চায় না নেড। 

স্বামী নেড রকএনরোল-এর সঙ্গে কেট 

নেডের বিরুদ্ধে আরও মারাত্মক অভিযোগ এনেছেন কেট। তাঁর যশ আর অর্থ ভাঙিয়েও নাকি অভিজাত সমাজে বিখ্যাত হওয়ার চেষ্টা করছেন নেড। কেটের দাবি, তিনি দিনে ৪ থেকে ৩টি ছবির শ্যুটিং-এ ব্যস্ত থাকেন, এরপর বাড়ি ফিরে নেডের আলসেমি এবং কর্তব্যহীনতায় তাঁর মাথা ঠিক রাখা কঠিন হয়ে দাঁড়ায়। বাইরে বেরিয়ে কাজ করতে যদি নেডের অনীহা থাকে তাহলে ঘরের কাজ অন্তত করুক। নেড সেটাও করেন না বলে আক্ষেপ কেটের। এমন অকর্মণ্য লোকের সঙ্গে কোনওভাবেই ঘর করা যায় না বলেই সাফ জানিয়েছেন তিনি।

দেখুন ভিডিও...