সম্পর্ক এখন আদায় কাঁচকলায়। লোকসভা ভোট যত এগিয়ে আসছে ততই মোদী বনাম মমতা দ্বৈরথের আঁচ তীব্র হচ্ছে রাজনৈতিক মহলে। রাজ্যে অমিত শাহ এসে কার্যত পরের বছর লোকসভা ভোটের দামামা বাজিয়ে দিয়েছেন। অন্যদিকে, ২১শে জুলাইয়ের সভা থেকেই মোদী সরকারকে উৎখাতের ডাক দিয়েছেন স্বয়ং মুখ্যমন্ত্রী।

এই বিষয়ে অন্যান্য খবর

এমন পরিস্থিতিতেই বিজেপি-তৃণমূল মিশে গেল পঞ্চায়েত ভোটে। এমন ঘটনা নদিয়ার নাকাশিপাড়ায়। বিজেপি বনাম তৃণমূল গনগনে সম্পর্কের মধ্যেই নাকাশিপাড়া ব্লকের ধনঞ্জয় গ্রাম পঞ্চায়েতে উলট পুরাণ। সেখানেই পঞ্চায়েত বোর্ড গঠন করতে বিজেপি-র সঙ্গে হাত মেলাল তৃণমূল।

ধনঞ্জয় গ্রাম পঞ্চায়েতের মোট আসন সংখ্যা ছিল ২১টি। এর মধ্যে তৃণমূল পায় ১৫টি আসন। বিজেপি ও নির্দল থেকে জয়ী প্রার্থীর সংখ্যা ছিল যথাক্রমে ৫ ও ১। তবে এর মধ্যেই শুরু হয়ে যায় অন্য অঙ্ক। তৃণমূলের গোষ্ঠী কোন্দলে পঞ্চায়েতের প্রবেশ বিজেপির।

কীভাবে? বলা হচ্ছে, নিজেদের দলের পঞ্চায়েত প্রধানকে পছন্দ ছিল না তৃণমূলেরই অনেকের। এর পরেই বিক্ষুব্ধ ৮ তৃণমূল সদস্য প্রতিপক্ষ ৫ বিজেপি ও ১ নির্দল প্রার্থীকে নিয়ে জোট গঠন করে বোর্ড দখল করে। লোকসভা ভোটের আগে এমন ঘটনা তৃণমূলের শীর্ষ নেতৃত্বের কপালে ভাঁজ ফেলবে নিঃসন্দেহে।