উত্তরাখণ্ডে যে কেবলমাত্র চারধাম দর্শনে যান মানুষ, তা নয়। হিমালয়ের এই অঞ্চল আদতে অ্যাডভেঞ্চার-প্রিয় মানুষের কাছে খুবই আকর্ষণীয়। পাহাড়-বনাঞ্চল-খরস্রোতা নদী— কোনও কিছুরই অভাব নেই এখানে। 

এ রাজ্যের বেশ কিছু পাহাড়ি নদীতে রয়েছে নানা ধরনের ওয়াটার স্পোর্টসের ব্যবস্থা। যেমন, রিভার র‌্যাফটিং। পাশাপাশি রয়েছে পাহাড়ের উপরে ভেসে বেড়ানোর পরিষেবাও। যেমন, প্যারা-গ্লাইডিং।

এই বিষয়ে অন্যান্য খবর

কিন্তু, এই ধরনের দুঃসাহসিক খেলাধূলো থেকে এবার বঞ্চিত হতে চলেছেন পর্যটকরা। এমনই খবর প্রকাশিত হয়েছে সর্বভারতীয় এক সংবাদমাধ্যমে। জানা গিয়েছে, উত্তরাখণ্ডের অ্যাডভেঞ্চার ট্যুরিজম সেক্টরকে সে রাজ্যের হাইকোর্ট নির্দেশ দিয়েছে যে, আপাতত সব ধরনের ওয়াটার স্পোর্টস ও প্যারাগ্লাইডিং বন্ধ রাখতে হবে। 

অ্যাডভেঞ্চার স্পোর্টসে মেতে প্রতি বছরই প্রাণ হারান বেশ কিছু পর্যটক। তা ছাড়া, কোনও ফিক্সড রেটও নেই এই সব পরিষেবার। দুঃসাহসিক এই কর্মকাণ্ডের জন্য প্রশিক্ষিত গাইডের প্রয়োজন হয়। এসবই নিয়ন্ত্রণে আনার জন্য আপাতত সব কিছু ‘ব্যান’ করার নির্দেশ দিয়েছে হাইকোর্ট।

অথচ এর পাশাপাশি নদীর পাড়ে ক্যাম্প সাইট তৈরির অনুমতি দিয়েছে রাজ্য সরকার। ডিভিশন বেঞ্চের বিচারক রাজীব শর্মা ও লোকপাল সিংহ খুবই উদ্বেগ প্রকাশ করেন এই ব্যবস্থার। কারণ, নদীর পাড়ে পর্যটক থাকার অর্থ— প্রকৃতির ভারসাম্য ক্ষতিগ্রস্থ হবে।