হিমালয়ের কোলে গারওয়াল হিলে এই ফুলের বাগানে। ভূপৃষ্ঠ থেকে এর উচ্চতা ১২ হাজার ফুট। আর সেখানেই হিমালয়ের কোলে এই ফুলের বাগান। প্রকৃতি নিজের খেয়ালে সেখানে লিখে দিয়েছে এক অপার সৌন্দর্য। 

‘ভ্যালি অফ ফ্লাওয়ার্স’ নামে খ্যাত এই বাগান ফের খুলে যাচ্ছে পর্যটকদের জন্য। তিন বছর আগে উত্তরাখণ্ডে ভয়ঙ্কর প্রাকৃতিক বিপর্যয়ে কার্যত নষ্ট হয়ে গিয়েছিল এই ‘ভ্যালি অফ ফ্লাওয়ার্স’। ফলে বন্ধ করে দেওয়া হয়েছিল পর্যটকদের জন্য এর দ্বার। ‘ভ্যালি অফ ফ্লাওয়ার্স’ ফের স্বমহিমায়।

 

হিমালয়ের কোলে এমন প্রাকৃতিক শোভা মেলে এক ফুলের বাগান যে অপেক্ষা করছে তা প্রথম ভারতবাসী সহ বিশ্বকে দেখিয়েছিলেন ব্রিটিশ অভিযাত্রী মার্গারেট লেগ্গে। আর এই ফুলের বাগান আবিষ্কার করতে গিয়ে মৃত্যুও হয়। মার্গারেটের ইচ্ছানুসারে তাঁকে এই ‘ভ্যালি অফ ফ্লাওয়ার্স’-এ সমাধিস্থ করা হয়েছিল। 

সৌন্দর্যের ডালি মেলে ‘ভ্যালি অফ ফ্লাওয়ার্স’মানুষকে আহ্বান করছে যেমন তেমনি এই সৌন্দর্যের আড়ালে আছে বিপদের হাতছানিও। কারণ এই ‘ভ্যালি অফ ফ্লাওয়ার্স’-এ বাস করে কালো ভাল্লুক থেকে ‘স্নোপার্ড লেপার্ড’, ‘মাস্ক ডিয়ার’। 

শুধু ফুল নয়, ‘ভ্যালি অফ ফ্লাওয়ার্স’-এর যত্রতত্র ছড়িয়ে আছে নানা ধরণের ঔষধির গাছ। যার মধ্যে উল্লেখযোগ্য— ‘বিরচ’,‘রডোডেনড্রন’ এবং ‘ব্রহ্ম কমল’।

যোশিমঠ থেকে ২০ কিলোমিটার দূরে ঘানঘারিয়া থেকে এই ‘ভ্যালি অফ ফ্লাওয়ার্স’-এর এলাকা শুরু। প্রায় ৮৭ স্কোয়ার কিলোমিটার জুড়ে বিস্তৃত এর এলাকা।