পুজোয় সাবান, শ্যাম্পু থেকে আইসক্রিম সবই বিক্রি করবে রাজ্য সরকার। আর সবেতেই দারুণ ছাড়। এখনও পর্যন্ত যা খবর তাতে প্রায় ৫০০ রকম ব্র্যান্ডেড সামগ্রী সাধারণের কাছে পৌঁছে যাবে রেশন পরিষেবার মাধ্যমে। মিলবে হজমের ওষুধ কিংবা ব্যাথা উপশমের মলমও। পোটাটো চিপস থেকে হেল্‌থ ড্রিঙ্কস। জানা গিয়েছে, এমআরপি-র উপরে ২৬ শতাংশ ছাড় দিয়ে পণ্য মিলবে রেশন দোকানে। এই উদ্যোগ শুরু হচ্ছে বৃহস্পতিবার গণেশ চতুর্থীর দিন থেকে।

খাদ্য দফতর সূত্রের খবর, একটি বেসরকারি সংস্থার সঙ্গে সরকারের যৌথ ভাবে এই সস্তার বাজার হবে। ওই সংস্থার অনেক শপিং মল রয়েছে এই রাজ্যে। সেই সব মলের থেকেও সস্তায় সামগ্রী পাওয়া যাবে রেশন দোকানে। ইতিমধ্যেই যে ‘মৌ’ সাক্ষরিত হয়েছে। চুক্তি অনুযায়ী, শপিং মলে বিক্রি হয় এমন দ্রব্য ২২ হাজার রেশন দোকানেও পাওয়া যাবে। আপাতত কিছু কিছু দোকান বেছে নিয়ে চালু হবে এই প্রকল্প। পরে রাজ্যের সর্বত্র ছড়িয়ে পড়বে শপিং মলের ক্ষুদ্র সংস্করণ। পণ্যের সংখ্যাও দিন দিন বাড়বে। আগামী দিনে ব্র্যান্ডেড পোশাক বিক্রি করাও লক্ষ্য রয়েছে সরকারের।

এই পরিকল্পনাও মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের। কার্যকর করবে খাদ্য দফতর। রাজ্যে বন্ধ হওয়ার মুখে পড়া ২২ হাজার রেশন দোকানকে চাঙ্গা করার লক্ষ্যেই এই পরিকল্পনা। প্যাকেটজাত তেল, হলুদ, মশলা থেকে ব্র্যান্ডেড সাবান, শ্যাম্পু, খাবার, পানীয় মিলবে রেশন দোকানে।

উল্লেখ্য, চলতি বছরের বিশ্ববঙ্গ সম্মেলনেই খাদ্য সরবরাহ ক্ষেত্রে বিনিয়োগের আহ্বান জানিয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী। রেশন দোকানগুলি মারফত সেই সব পন্য বিক্রির প্রস্তাবও দেন তিনি। এর পরেই একটি বেসরকারি সংস্থা আগ্রহ প্রকাশ করে। গত মার্চ মাসে খাদ্য দফতরের সঙ্গে সংস্থাটির চুক্তি হয়।

এই বিষয়ে অন্যান্য খবর

রেশন দোকানগুলিকে ছোট শপিং মলের মতো করে সাজিয়ে দেওয়ার দায়িত্বও নিয়েছে ওই সংস্থাটি। আইসক্রিম রাখার জন্য রেফ্রিজারেটর থেকে আধুনিক বিলিং ব্যাবস্থা সবই করে দেবে ওই সংস্থা।