ধারালো হাতিয়ার নিয়ে স্বামীর উপরে আচমকাই ঝাঁপিয়ে পড়লেন স্ত্রী! স্বামীর অপরাধ, তিনি স্ত্রীর মোবাইলটা নিয়ে হোয়াটসঅ্যাপে চ্যাট ডিটেইলস দেখতে চেয়েছিলেন! তাতেই প্রচণ্ড উত্তেজিত হয়ে তাঁর উপর ঝাঁপিয়ে পড়েন স্ত্রী। ঘটনায় স্বামী বেশ গুরুতর আঘাত পান। তাঁর মাথায় বেশ কয়েকটি সেলাই পড়েছে। গত শনিবার এমনই ঘটনা ঘটেছে উত্তরপ্রদেশের ভিলওয়ালি গ্রামের খেরাগড়ে। 

একটি সর্বভারতীয় সংবাদ মাধ্যম সূত্রে জানা যাচ্ছে, একুশ বছরের নেত্রপাল সিংহ ও উনিশ বছরের নিতু সিংহের বিয়ে হয়েছিল ২০১৪ সালে। কিন্তু নীতুর অন্য একজনের সঙ্গে সম্পর্ক ছিল। সেই কারণে দু’জনের মধ্যে অশান্তি চলছিল। তাঁরা আলাদাই থাকতেন। একটি পারিবারিক অনুষ্ঠানে যোগ দিতে নীতু শ্বশুরবাড়ি এসেছিলেন। এর পরই ঘটে ওই ঘটনা। 

নীতুর স্বামী জানিয়েছেন, ‘‘আমি দেখেছিলাম নীতু ওর সেই প্রেমিকের সঙ্গে চ্যাট করছিল হোয়াটসঅ্যাপে। আমি ওর থেকে ফোনটা চাই। ও দিতে রাজি হয়নি। শেষে আমি জোর করতে গেলে ও হাতিয়ার নিয়ে আমাকে আক্রমণ করে। আঘাত পেয়ে আমি অজ্ঞান হয়ে যাই।’’

এই বিষয়ে অন্যান্য খবর

নেত্রপালের বাবা রাজীব সিংহ সংবাদ মাধ্যমকে জানিয়েছেন, ‘‘ভিন্ন জাতের একটি ছেলের সঙ্গে নীতুর সম্পর্ক ছিল বিয়ের আগে থেকেই। আমরা জানতাম না। ব্যাপারটা জানার পরে আমরা ওকে অনেক বুঝিয়েছিলাম। কিন্তু ও বোঝেনি। ছেলেটির সঙ্গে সম্পর্ক বজায় রেখেই চলছিল।’’ 


ঘটনার পরে নীতু তাঁর প্রেমিকের সঙ্গে গ্রাম ছেড়ে পালাতে গেলে নেত্রপালের আত্মীয়রা দু’জনকে মারধর করে থানায় নিয়ে যায়। থানায় নীতু দাবি করেন, নেত্রপালের অভিযোগ মিথ্যে। তিনি নিজেই নিজেকে আঘাত করে তাঁকে ফাঁসানোর চেষ্টা করছেন। 

খেরাগড় থানার পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, নীতুকে আটক করা হয়েছে। কিন্তু আশ্চর্যজনক ভাবে এখনও নেত্রপালের বাড়ি থেকে কোনও লিখিত অভিযোগ করা হয়নি।