বয়ফ্রেন্ডের সঙ্গে প্রবল ঝগড়া। ফল ভুগল ইউটিউব। এলোপাথাড়ি গুলি চলল সংস্থার সদর দফতরে। প্রবল আতঙ্ক ছড়াল কর্মীদের মধ্যে।

এই বিষয়ে অন্যান্য খবর

এক সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদন অনুযায়ী, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সান ফ্রান্সিসকোতে মঙ্গলবার ইউটিউবের সদর দফতরে হঠাতই এক মহিলা এলোপাথাড়ি গুলি চালাতে শুরু করেন।

হামলায় তিনজন গুরুতর জখম হন। আহতদের মধ্যে একজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানা গিয়েছে। তবে সূত্রের খবর, হামলার পরে ওই মহিলা নিজেকেই গুলি করে আত্মঘাতী হন।

তল্লাশি চালাচ্ছে পুলিশ। ছবি- এএফপি

ঘটনার পরেই প্রবল আতঙ্ক ছড়ায় ইউটিউবের কর্মীদের মধ্যে। পরে গোটা এলাকা ঘিরে ফেলা হয়। নামানো হয় স্পেশাল কম্যান্ডোদেরও। গুগলের মালিকানধীন ওই সংস্থার অফিসে এখনও চলছে চিরুনি তল্লাশি। ঠিক কী কারণে ওই মহিলা এলোপাথাড়ি গুলি চাললো, তা এখনও স্পষ্ট হয়নি বলে জানিয়েছে পুলিশ।

তবে আন্তজার্তিক সংবাদমাধ্যম এনবিসি ও সিএনএনে দাবি করেছে, ওই মহিলার নাম নাসিম আগডাম। 

দ্য সান জোসে মারকারি নামে একটি আন্তর্জাতিক সংবাদপত্রে প্রকাশিত হয়েছে, ওই মহিলা নিজের বয়ফ্রেন্ডের উপর হামলা চালাতে গিয়েছিলেন। নাসিমের সঙ্গে তার বয়ফ্রেন্ডের ঝামেলা চলছিল বলেও দাবি করা হয়েছে ওই সংবাদমাধ্যমে।

নজরদারি চালানো হচ্ছে এলাকায়। ছবি —এএফপি

হামলার কিছুক্ষণের মধ্যেই পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে যাওয়ায় প্রশাসনকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন গুগল সিইও সুন্দর পিচাই। 

অন্যদিকে, এই হামলার পরেই ফের মাথাচাড়া দিয়েছে মার্কিন মুলুকে অবাধে বন্দুকের ব্যবহারে রাশ টানার দাবিটিও। প্রসঙ্গত, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে অবাধে বন্দুক বিক্রিতে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করার দাবিতে বহুদিন ধরেই সরব রয়েছেন সেখানকার বাসিন্দারা। ইউটিউবে এই হামলার পরে বন্দুক ব্যবহারে হ্রাস টানতে চেয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় সরব হয়েছেন অনেকে।