একজন প্রায় ৮ ফুট লম্বা। আর তাঁর পাশের মানুষটি লম্বায় কোনও রকমে ২ ফুট পার করেছেন। এমন অসম ‘বন্ধুত্ব’কেই এবার কাজে লাগানো হলো পর্যটন শিল্পে। 

তুরস্কের সুলতান কোসেন ও ভারতের জ্যোতি আম্‌গে, বিশ্বের সব থেকে লম্বা পুরুষ ও সব থেকে খর্বকায় মহিলা, তিন দিনের জন্য গিয়েছিলেন মিশরের কায়রোতে। সেখানে নীল নদের ধারে ফেয়ারমন্ত নাইল সিটি হোটেলে আয়োজিত হয় পর্যটন নিয়ে তিন দিনের এক বিশেষ অনুষ্ঠান। 

এই বিষয়ে অন্যান্য খবর


মিশরের ঐতিহ্য ও পর্যটনকে বিশ্ব-দরবারে আরও আকর্ষণীয় করে তোলার উদ্দেশ্যই এমন আয়োজন করে মিশর। চলতি বছরের জানুয়ারি মাসের ২৬ থেকে ২৯ তারিখ, পর্যটন সম্বন্ধীয় ওই অনুষ্ঠানে সুলতান কোসেন ও জ্যোতি আম্‌গে নিজেদের কথা বলেন। জানান তাঁদের জীবনের চ্যালেঞ্জের কথাও।

সুলতান কোসেন ও জ্যোতি আম্‌গে, দুজনেই ২০১১ সালে গিনেজ বুকে জায়গা করে নেন তাঁদের অস্বাভাবিক উচ্চতার জন্য। সুলতানের উচ্চতা ৭ ফুট ৯ ইঞ্চি, এবং জ্যোতির উচ্চতা ২ ফুটের একটু বেশি। শুধুমাত্র উচ্চতার রেকর্ডই নয়, আরও একটি রেকর্ড রয়েছে সুলতানের ঝুলিতে। কবজি থেকে মধ্যমার মাথা পর্যন্ত, তাঁর হাতের মাপ ২৮.৫ সেন্টিমিটার, যা কোনও জীবিত ব্যক্তির মধ্যে সব থেকে বেশি।