SEND FEEDBACK

Cancel
English
Bengali
Cancel
English
Bengali

কুক-টুক: গরমে ঠান্ডা থাকার দু’টি পদ

এপ্রিল ১১, ২০১৬
Share it on
প্রচণ্ড গরম পড়েছে। এখন খাওয়াদাওয়া করতে হবে বুঝেশুনে। শরীর ঠান্ডা রাখবে এমন সবজি খেতে হবে। রইল দু’টি রেসিপি যা খেতেও ভাল এবং শরীরও ভাল থাকবে।

আকাশে-বাতাসে এখন গ্রীষ্মের আগমন বার্তা। বাজারে গেলেও তার প্রভাব চোখ এড়ায় না। এখন দিন গিয়েছে ফুলকপি ও বাঁধাকপির। বাজারের থলি ভরে বাড়িতে আসছে ঝিঙে ও কচি পটল। অনেকেই এই সবজিগুলি খেতে পছন্দ করেন না কিন্তু প্রবল গরমে তাপপ্রবাহ থেকে বাঁচতে এবং শরীর ঠান্ডা রাখতে এই সবজিগুলি খুবই উপকারী।

এই অপছন্দের সবজি দিয়েই অনেক লোভনীয় পদ রান্না করা যায়। আপনাদের জন্য রইল পটল ও ঝিঙের দু’টি পদের রেসিপি— চাল-পটল এবং ঝিঙে-চিংড়ি ভাপা। দু’টি রান্নাই ভাত দিয়ে খাবার মতো। আপনারা ট্রাই করুন বাড়িতে এবং অবশ্যই জানাবেন কেমন লাগল। 

চাল-পটল

উপকরণ:

পটল— ১০টি 

মাঝারি আলু— ৩টে

নুন— স্বাদমতো

গোবিন্দভোগ চাল— ৫০ গ্রাম 

চিনি— ১ চা-চামচ 

ঘি— ১ টেবিল-চামচ 

গরমমশলা গুঁড়ো— ১/২ চা-চামচ 

হলুদ গুঁড়ো— ১/২ চা-চামচ 

লঙ্কা গুঁড়ো— ১ চা-চামচ 

জিরে গুঁড়ো— ১ চা-চামচ 

আদাবাটা— ২ চা-চামচ 

নারকেল কোরা— ১/২ কাপ 

তেজপাতা— ২টি 

গোটা জিরে— ১/২ চা-চামচ 

সর্ষের তেল— পরিমাণমতো 

কাঁচালঙ্কা— ৩টে 

প্রণালী: 

পটল খোসা ছাড়িয়ে দু’টুকরো করে নিন। আলু চার টুকরো করে কাটুন। কড়াইতে তেল গরম করুন এবং আলু ও পটল তেলে হাল্কা করে ভেজে নিন। গোবিন্দভোগ চাল জলে ভিজিয়ে রাখুন। এই বার কড়াইতে অল্প তেল দিয়ে তাতে জিরে ও তেজপাতা ফোড়ন দিতে হবে। ফোড়ন হয়ে গেলে তেলের মধ্যে ভিজিয়ে রাখা গোবিন্দভোগ চাল দিয়ে হাল্কা করে ভাজতে হবে। এইবার একে একে নারকেল কোরা, নুন, চিনি, হলুদ গুঁড়ো, লঙ্কা গুঁড়ো, জিরে গুঁড়ো ও আদাবাটা দিয়ে মশলা কষতে হবে। মশলা থেকে তেল ছেড়ে দিলে ভেজে রাখা আলু-পটল ও ৩/৪ কাপ জল দিয়ে মাঝারি আঁচে ঢাকা দিয়ে রান্না করতে হবে। সবজি ও চাল সেদ্ধ হয়ে গেলে ঘি, কাঁচালঙ্কা ও গরম মশলা দিতে হবে। এই রান্নাটা একটু মিষ্টি মিষ্টি খেতে হবে। 

ঝিঙে-চিংড়ি ভাপা

উপকরণ:

খোসা ছাড়ানো চাবড়া চিংড়ি— ২৫০ গ্রাম 

ঝিঙে ডুমো করে কাটা— ৫০০ গ্রাম 

নারকেল কোরা— ১/২ কাপ 

সর্ষে বাটা— ৩ টেবিল-চামচ 

কাঁচালঙ্কা বাটা— ২ চা-চামচ 

গোটা কাঁচালঙ্কা— ৪টে 

নুন— স্বাদমতো

চিনি— ১/২ চা-চামচ 

সর্ষের তেল— পরিমাণমতো 

হলুদ গুঁড়ো— ১/২ চা-চামচ 

পোস্ত বাটা— ১ টেবিল-চামচ 

প্রণালী:

মাছ ধুয়ে নিন। ঝিঙে ধুয়ে জল ঝরিয়ে নিন। এইবার সব উপকরণ একসঙ্গে মেখে নিন ভাল করে। ৪ টেবিল-চামচ মতো সর্ষের তেল দিয়ে আবার মেখে নিন। এইবার চিংড়ি ও ঝিঙের মাখা প্রেশার কুকারে বাটি বসিয়ে ২টো স্টিম দিয়ে নিতে হবে। এই রান্নাটা কড়াইতেও চাপা দিয়ে হাল্কা আঁচে রান্না করা যেতে পারে। বেশ মাখা মাখা হলে আরও ২ টেবিল চামচ কাঁচা সর্ষের তেল ছড়িয়ে গরম ভাতের সঙ্গে পরিবেশন করতে হবে। এই রান্নায় কোনও জল দেবার দরকার নেই কারণ ঝিঙে থেকে জল বেরয়।   

আরও পড়ুন

কুক-টুক: মাটন মহারাজ

কুক-টুক: চমকিলা চিংড়ি

     কুক-টুক: কমলাবিলাস     

Share it on
আরও যা আছে
আরও খবর
ওয়েবসাইটে আরও যা আছে
আরও খবর
আমাদের অন্যান্য প্রকাশনাগুলি -