SEND FEEDBACK

Cancel
English
Bengali
Cancel
English
Bengali

ফিটমন্ত্র: পুজো ফিটনেস প্রস্তুতি পর্ব ১

জুলাই ১৫, ২০১৭
Share it on
আসুন, এবেলার সব পাঠক-পাঠিকারা যেন নিজেদের ফিটনেস বাড়িয়ে, চেহারার সৌন্দর্যায়ন করে কেনাকাটি শুরু করেন, যাতে যে পোশাকই আপনারা পড়ুন না কেন, সবই যেন অলঙ্কারের মতো শরীরে ঝলমল করে।

আমাদের পুজোর কাউন্টডাউন শুরু হয়ে গিয়েছে। হাতে মেরেকেটে মাত্র আড়াই মাস সময়। কেনাকাটির পর্ব এই শুরু হল বলে। চলুন এবারের পুজো আপনার মনে যেন সত্যি দাগ কাটে। 

গুরুপ্রসাদ বন্দ্যোপাধ্যায়

কীভাবে? আমি মনে করি, পৃথিবীর সবচেয়ে কদর্য মানুষও নিজেকে ভাল দেখানোর চেষ্টা করে। ফেস্টিভ্যালের সময় নিজেকে সাজিয়ে তোলার চেষ্টা করে। আসুন, এবেলার সব পাঠক-পাঠিকারা যেন নিজেদের ফিটনেস বাড়িয়ে, চেহারার সৌন্দর্যায়ন করে কেনাকাটি শুরু করেন, যাতে যে পোশাকই আপনারা পরুন না কেন, সবই যেন অলঙ্কারের মতো শরীরে ঝলমল করে। এর একটাই কারণ— মেদহীন ছিপছিপে সুন্দর চেহারায় আর আকর্ষণীয় ব্যক্তিত্বের অধিকারী হয়ে আপনি সবার কাছে যেন দর্শনীয় এবং আদরণীয় হয়ে ওঠেন। এটাই আমার প্রার্থনা। মনে রাখবেন, আপনাদের গাইডলাইন দেওয়ার জন্য প্রতিজ্ঞাবদ্ধ। 

 

আমি আশা করব আপনি এর আগের বেশ কয়েকটা ব্লগ দেখে আমার দেওয়া ফিটনেসের গাইডলাইন ফলো করে নিশ্চয়ই উপকৃত হয়েছেন। হাতে আর সময় নেই। ভিডিওটা যতদূর সম্ভব ফলো করুন, তার পর সকাল কিংবা সন্ধে, অন্তত: ১৫ মিনিট নীচের ছবিগুলো দেখে ব্যায়ামগুলো প্র্যাকটিস করুন। এগুলো সহজ ব্যায়াম কিন্তু খুব উপকারী, সব বয়সিরাই করতে পারবেন। 

লেগ ক্রিস ক্রস: দুটো পা মাটি থেকে ৪৫ ডিগ্রি তুলে কাঁচি চালাবার মতো ক্রস করুন, দশবার করে দু’সেট অর্থাৎ ১০x২ বার। 

সিঙ্গল লেগ সার্কলিং: একটা পা মাটিতে রেখে আর একটা পা ৪৫ ডিগ্রি উপরে তুলে ১০ বার ক্লকওয়াইজ আবার দশবার অ্যান্টি ক্লকওয়াইজ ঘোরান। তার পর আর একটা পা ঘোরাবেন। এইভাবে ১০x২ বার। কিছুদিন করার পরে দুটো পা একসঙ্গে মাটি থেকে ৪৫ ডিগ্রি উপরে তুলে ক্লকওয়াইজ আর অ্যান্টিক্লকওয়াইজ ঘোরাবেন ১০x২ বার। 

নি ফ্রন্ট অ্যান্ড ব্যাক: দুটো হাঁটু একটু ফোল্ড করে মাটি থেকে ৪৫ ডিগ্রি উপরে তুলে ধরুন। এবার শ্বাস ছাড়তে ছাড়তে ছবির মতো পা দুটো যতটা সম্ভব পেটের দিকে নিয়ে এসে পুরো পেটে চাপ অনুভব করুন। এবার শ্বাস নিতে নিতে পা দুটো একসঙ্গে সোজা করে ৪৫ ডিগ্রি উপরে রাখুন। এইভাবে ১০x২ বার করতে হবে। 

বেন্ড নি লেগ রেইজ: ছবির মতো শ্বাস ছেড়ে পা দুটো পেটের কাছে নিয়ে আসুন। এবার পা দুটো ৬০ ডিগ্রি উপরের দিকে তুলে ধরে শ্বাস নিতে নিতে মাটিতে রাখুন। প্রথম প্রথম মাটিতে পা দুটো নামাবেন। পরবর্তীকালে মাটি থেকে ৬ ইঞ্চি উপরে রাখবেন— তলপেটে ভাল চাপ পড়বে। এটা ১০x২ বার করবেন। 

নি টু চেস্ট: এই ব্যায়ামটা সাধারণ ভাবে গ্যাস, অ্যাসিডিটি, পেট ফাঁপা, বুক জ্বালা ইত্যাদির ব্যায়াম। তার সঙ্গে ফ্যাট কমাতে সাহায্য করে। পা দুটো মাটি থেকে ৩০ ডিগ্রি তুলুন, তার পর শ্বাস ছাড়তে ছাড়তে হাঁটু দুটো ছবির মতো হাতের সাহায্যে বুকের কাছে কয়েক সেকেন্ড চেপে রাখুন। এবার শ্বাস নিতে নিতে ছবির মতো পজিশনে ফিরে যান। এটা ১০X২ বার করতে হবে। 

অল্টারনেট লেগ রেইজ: এটা খুব সহজ ব্যায়াম কিন্তু তলপেটে ভাল চাপ পড়ে। পা দুটো প্রথমে সোজা করুন। এবার আস্তে আস্তে বাঁ পা-টা শ্বাস নিতে নিতে ৬০ ডিগ্রি উপরে তুলুন— এবার নামিয়ে ডান পা তুলুন। প্রথমে পা মাটিতেই রাখবেন। অভ্যস্ত হয়ে গেলে মাটি থেকে ৬ ইঞ্চি উপরে রাখবেন। এটা ১০x২ বার। 

লায়িং সাইড স্ট্রেচ: এই ব্যায়ামটা বয়স্ক লোকেদের জন্য খুব ভাল স্ট্রেচিং ব্যায়াম। কোমর ব্যথা এবং কোমরে সাইডের ফ্যাট কাটাতে অব্যর্থ ব্যায়াম। ছবির মতো সোজা হয়ে হাঁটু ভাঁজ করে শুয়ে পড়ুন। এবার শ্বাস নিতে নিতে দুটো পা একসঙ্গে বাঁদিকে যতটা সম্ভব ঘোরান— আর দুটো হাত স্ট্রেচ করে ঘাড় ঠিক উল্টো দিকে অর্থাৎ ডানদিকে যতটা পারুন স্ট্রেচ করুন। আবার ছবির মতো পা দুটো ডান দিকে যতটা সম্ভব স্ট্রেচ করুন আর ঘাড় বাঁদিকে ঘোরান। এরকম ১০ বার করবেন, কোমরে খুব আরাম পাবেন। 

সাইড বেন্ড থাই অ্যাপার্ট: ছবির মতো হাঁটু ভাঁজ করে দাঁড়ান। এবার মাথার পিছনে হাত রেখে যতটা পারেন শ্বাস ছাড়তে ছাড়তে বেন্ড করুন। যাতে আপনার ডানদিকের কোমরে চাপ পড়ে। এবার শ্বাস নিতে নিতে মিডল পজিশনে আসুন। ওখান থেকে আবার বাঁদিকে যতটা সম্ভব স্ট্রেচ করবেন। কোমরের মেদ কমাতে অব্যর্থ। 

ওয়ান টুইস্ট: দেওয়াল থেকে একফুট এগিয়ে দাঁড়ান। এবার কোমর মোচড় দিয়ে ডানদিকে ঘুরে দুটো হাত দিতে দেওয়াল ধরে কোমরকে স্ট্রেস করার চেষ্টা করুন। মাথা যতটা পারবেন সামনের দিকে থাকবে। আবার শ্বাস নিতে নিতে সোজা তাকান আর শ্বাস ছাড়তে ছাড়তে দিকে কোমর টুইস্ট করুন। ১০x২ বার করতে হবে। 

এই বিষয়ে অন্যান্য খবর

এই দশটা ব্যায়াম নিয়মিত করতে হবে আর সঙ্গে যতটা সম্ভব ম্যানেজ করে হাঁটতে হবে। আমার গাইডলাইন কিন্তু খুব সহজ-সরল। দরকার মনটাকে স্থির করে কাজে নেমে পড়া। না ভেবে শুরু করুন— আমি আপনাদের গাইড করার জন্য সব সময় প্রস্তুত। 

প্রমিস করুন যেন এবারের পুজোটা চ্যালেঞ্জিং হয়। সব সময় মনে রাখবেন— ‘‘কিছু পেতে গেলে কিছু দিতে হয়!’’ 

পরের ব্লগগুলোতে আরও অনেক অনেক গাইডলাইনস পাবেন— নমস্কার!!!

Share it on
আরও যা আছে
আরও খবর
ওয়েবসাইটে আরও যা আছে
আরও খবর
আমাদের অন্যান্য প্রকাশনাগুলি -