SEND FEEDBACK

Cancel
English
Bengali
Cancel
English
Bengali

ফিটমন্ত্র: পুজো ফিটনেস প্রস্তুতি পর্ব ২, ম্যাজিক ডায়েট স্পেশাল

অগস্ট ৩, ২০১৭
Share it on
এবার আমরা চেহারায় শেষ তুলির টানের দিকে নজর দেব। আগের দু’তিনটে ব্লগে মেদ কমানোর সব রকম টুকিটাকি গাইডেন্স দেওয়া হয়েছে।

আয়না আপনার বড় বন্ধু— শরীরের ভালমন্দের সঠিক আলোকপাতে কেবল আয়নাই দিতে পারে। আয়নার সামনে দাঁড়িয়ে নিজের শরীরের চুলচেরা বিচার নিজেই করুন হাতে আর মাত্র ক’টা দিন— দেখতে দেখতে পুজো চলে আসবে। এবার আমরা চেহারায় শেষ তুলির টানের দিকে নজর দেব। আগের দু’তিনটে ব্লগে মেদ কমানোর সব রকম টুকিটাকি গাইডেন্স দেওয়া হয়েছে। এবার কিন্তু আসল পর্ব— সেটা হচ্ছে ডায়েট। আমি আগে বেশ কয়েক বার আপনাদের স্মরণ করিয়ে দিয়েছি যে ফিটনেস = ৭০% ডায়টে + ৩০% এক্সারসাইজ। 

গুরুপ্রসাদ বন্দ্যোপাধ্যায়

আমি এতটাই ডায়েটের উপর জোর দিচ্ছি কারণ বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই আপনাদের হাতে ব্যায়ামের সময় থাকে না। তাই আমি সব সময় আপনাদের টিপস দিয়ে থাকি কী করে অফিস এবং স্কুলে কিংবা বাড়িতে হাঁটাচলা করবেন— কম সময়ে কী করে ক্যালরি বার্ন করবেন। 

যেটা আপনাদের কিছুটা হাতের মধ্যে আছে সেটা হচ্ছে ডায়েট। আমি এই ব্যাপারে খুব সহজ ডায়েট গাইডলাইনস দেব যাতে সবাই ফলো করতে পারেন। তবে হ্যাঁ, সব সময়েই যে খুব মুখরোচক হবে তা কিন্তু নয়। আমাকে একটা প্রশ্ন করতে অনুমতি দিন— ‘কিছু পেতে গেলে কিছু ছাড়তে হয় কি না?’

এই বিষয়ে অন্যান্য খবর

চলুন তাহলে মনের সব জড়তা ঝেড়ে ফেলে পুজোর শেষ প্রস্তুতির দিকে চলি:— 

১. ঘুম থেকে উঠেই প্রথমে ক) একগ্লাস গরম জলে কয়েক ফালি পাতিলেবুর রস মিশিয়ে খেতে হবে। খ) তার আধ ঘণ্টা পরে ১ চা-চামচ সাদা জিরে এক কাপ জলে মিশিয়ে ফোটাতে হবে। ঠান্ডা হলে খেতে হবে। 

২. ব্রেকফাস্ট:— ওটস (খিচুড়ির মতো করে সবজি মেশাতে হবে), দুধ-কর্নফ্লেক্স বা ডালিয়া— যে কোনও একটি আইটেম খেতে হবে। অফিসে গিয়ে এক কাপ চিনি ছাড়া চা আর একটা ক্রিমকেকার বিস্কুট। 

৩. লাঞ্চ:— ক) চিকেন স্যালাড— এক জনের জন্য হলে দুই বা তিন পিস চিকেন সেদ্ধ করে সরু সরু করে গ্রেট করতে হবে। প্রেশার কুকারে বিনস, গাজর ও একটু নুন দিয়ে ভাপিয়ে নিতে হবে। একটা বাটিতে ভাপানো সবজির সঙ্গে চিকেন মিশিয়ে কয়েক ফোঁটা পাতিলেবুর রস ছড়াতে হবে। টম্যোটো এবং কাঁচা পেঁয়াজ দেওয়া যেতে পারে। স্কুল কিংবা কলেজের টিফিনেও নেওয়া যাবে। 

খ) ওটস স্যালাড— বিনস, গাজর, কাঁচা পেঁপে, ক্যাপসিকাম, দুপিস চিকেন, একটু নুন, সামান্য জিরে গুঁড়োর সঙ্গে দেড় কাপ জল মিশিয়ে প্রেশারে স্টিম দিতে হবে। সেদ্ধ হয়ে গেলে দু পিস চিকেন আলাদা পাত্রে রাখতে হবে। এবার তিন টেবিলস্পুন ওটস দশ মিনিট জলে ভিজিয়ে ভাপানো সবজির সঙ্গে মিশিয়ে আগুনে ৫ মিনিট নাড়াচাড়া করতে হবে। এবার দু পিস চিকেন গ্রেট করে ওই স্যালাডে ছড়িয়ে দিতে হবে। উপরে লেখা স্যালাডের সঙ্গে আপেল কিংবা পেয়ারা খেতে হবে। 

গ) ফ্রুট স্যালাড— যদি লাঞ্চে উপরের দুটো আইটেম করা সম্ভব না হয় তা হলে আপেল, পেয়ারা, পাকা পেঁপে, শশা, জামরুল ইত্যাদির সঙ্গে টক দই মেশাতে হবে। এর সঙ্গে একটা বা দুটো ডিমের সাদা অংশ খাওয়া যেতে পারে। 

৩. টিফিন:— লাঞ্চের দু’ঘণ্টা থেকে তিন ঘণ্টার মধ্যেই গ্রিন টি, লিকার টি, লেমনটির সঙ্গে একটা বিস্কুট খাওয়া যাবে। তার ঘণ্টাখানেক পর ছোলা সেদ্ধ বা ছোলার চাট-লেবু, পেঁয়াজ-টম্যাটো দিয়ে খাওয়া যেতে পারে। স্কুল-কলেজ পড়ুয়ারা বাড়ি ফিরে সুজির উপমা/ ছোলার চাট/ অল্প মুড়ি-শশা। ছানা খেতে পারো। অফিসযাত্রীরাও বাড়ি ফিরে ছানা কিংবা ছানার সঙ্গে খিদে পেলে একটা বড় শশাও খেতে পারেন। 

৪. ডিনার:— ডিনারে চিকেন স্যুপ খেতে হবে। দু’পিস চিকেন, মাঝারি পেঁয়াজ ৪ টুকরো, ছোট চার ফালি আদা, একটু ক্যাপসিকাম, গোলমরিচ দশ-বারোটা, একটু জিরে গুঁড়ো আর সামান্য লবণ দিয়ে প্রেশার কুকারে একটু নাড়াচাড়া করতে হবে। তার পর মাঝারি বাটির আন্দাজমতো একবাটি জল ঢেলে প্রেশারে স্টিম দিতে হবে। একটা বড় বোলে ঢালতে হবে... স্বাদের জন্য কয়েক ফোঁটা পাতিলেবুর রস দেওয়া যেতে পারে। চিকেন স্যুপের সঙ্গে এক প্লেট স্যালাড কিংবা এক বোল রায়তা খেতে হবে। চিকেন সম্ভব না হলে সব রকম ভেজিটেবিল দিয়ে কয়েকটা সয়াবিন মিশিয়ে খাওয়া যেতে পারে। 

ডিনারের পরে অন্তত ৪৫ মিনিট পায়চারি অবশ্যই করবেন— তার পর বসবেন কিংবা শুতে যাবেন। আমার লেখা ডায়েটের সঙ্গে যদি কোনও রকম ভাবে ম্যানেজ করে ৩০ মিনিট ব্রিসক ওয়াক করতে পারেন, তা হলে আমি জোর গলায় আপনাদের সবাইকে আশ্বস্ত করতে পারি যে আপনারা যে রকম এবং যতো বডিওয়েট কমাতে চান কমাতে পারেন। তাছাড়া এই ম্যাজিক ডায়েট ডায়বেটিস, কোলেস্টেরল ও ট্রাইগ্লিসারয়েড নিয়ন্ত্রণ করতেও সাহায্য করে। 

আমার এই ম্যাজিক ডায়েট ফলো করে সহস্রাধিক লোক অন্ধকার থেকে আলো দেখতে পেয়ে জীবনটাকে এখন তারিয়ে তারিয়ে উপভোগ করছেন। দুটো ছোট প্রমাণ আপনাদের সামনে পেশ করব— তাহলেই বুঝতে পারবেন, ‘ফিটনেস ইজ হ্যাপিনেস’। 

অমিত কুমার দত্ত

আমার ডায়েট ও ব্যায়াম অনুসরণ করে ৪০ কেজি কমিয়ে সদ্য বিবাহ সম্পন্ন করে এই মুহূর্তে হানিমুনের আনন্দে ব্যস্ত! 

প্রতিমা মজুমদার

বিশাল ওজনের ভারে কব্জা হয়ে দিনগত পাপক্ষয়ের মতো সাধারণ ঘরে বসে হাউজওয়াইফের জীবন যাপন করতেন। আমার ‘ফিটমন্ত্রে’ দীক্ষিত হয়ে ২৫ কেজি ওয়েট কমিয়ে, ফুরফুরে মেজাজে ঘরে-বাইরের সব কাজ একা হাতে সামলাচ্ছেন এবং সোসাইটিতে নিজের একটা আলাদা আইডেন্টিটি তৈরি করতে সক্ষম হয়েছেন। 

সুতরাং পাঠক-পাঠিকারা, আপনাদের কাছে অনুরোধ— সমস্ত জড়তা ঝেড়ে ফেলে নতুন উদ্যমে নেমে পড়ুন। আমার প্রমিস— আমি সব সময় আপনাদের সঙ্গে থাকব! নমস্কার! 

Share it on
আরও যা আছে
আরও খবর
ওয়েবসাইটে আরও যা আছে
আরও খবর
আমাদের অন্যান্য প্রকাশনাগুলি -