SEND FEEDBACK

English
Bengali

লেখার কথা: ছবিটা আপলোড করার পরেই একটা অশালীন কমেন্ট, কিন্তু কেন

এপ্রিল ১৮, ২০১৭
Share it on
সব কিছু কি বড় উলঙ্গ বা ওপেন হয়ে যাচ্ছে না? যে কল্পনায় সুনীল, সমরেশ বা বুদ্ধদেব গুহ পড়তে পড়তে ভাললাগার আবেশে আমরা শিহরিত হতাম, তা পাবলিক ফোরামে এতোটা স্পষ্টই। তাও আবার আমাকে নিয়ে!

আমার বয়সি যাঁরা, আশা করি তাঁরা আমার আজকের এই টপিকের সঙ্গে রিলেট করতে পারবেন। মোবাইলের এপার আর ওপারের সময়ের সঙ্গে চলা কিছু আবেগপ্রবণ বাঙালির কথাই বলছি।  

শীতের দিনের ছুটির সকাল-দুপুরটা— আহা! বড় প্রিয় ছিল, বড় আরামের। সকালে উঠে বারান্দায় বা ছাতে মাদুর পেতে পড়তে বসা (তখন ক্লাসের ফাইনাল হতো ডিসেম্বরে)। শীতে কাঁপতে কাঁপতে কোনও রকমে গায়ে দু’ মগ জল ঢালা, বা শাওয়ারের নীচে দাঁড়িয়ে স্নান সারা। দুপুরের খাওয়া সেরে আবারও রোদে পিঠ দিয়ে চুল শুকানো, কমলালেবুর গন্ধ, একটু আশাপূর্ণা দেবী। বা, সুনীল গঙ্গোপাধ্যায়ের প্রেমের গল্পে বুঁদ হয়ে থাকা, আর মনের মানুষটির কল্পনায় আঁকিবুকি খেলা। বিকেলে র‌্যাকেট হাতে বন্ধুদের সঙ্গে খেলা।

কী নিষ্পাপ মিষ্টি সেই সব স্মৃতি! বলাই চলে, ‘আগে কী সুন্দর দিন কাটাইতাম’!

তুলনায় এখন বই পড়া? ধুর! নেট আছে কীসের জন্য? অনলাইন শপিং করো, হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপে পরের প্ল্যানটা ঠিক করে নাও তো— ব্রিদিং আর্থ, নাকি হপি পোলা?

এটাতেও তো কম মজা, কম আনন্দ হয় না! তবে কেন ‘আহা’টা আসে না? সেটা কি ফেলে আসা সারল্যে মাখা দিনগুলোর কথা ভেবে? নাকি, বর্তমানকে কোথায় যেন মেনে নিতে না পেরে, হাঁপিয়ে ওঠার তাড়না?

সম্প্রতি আমার একটা পুরনো ছবি আপলোড করলাম ইনস্টাগ্রামে (বর্তমানের সঙ্গে আমিও মানিয়ে নিচ্ছি)। ছবিটা আপলোড করার পরেই একটা কমেন্ট— আই ওয়ান্ট টু **** ইউ হার্ড। ঠিকই ধরেছেন, ‘দ্য এফ ওয়ার্ড’। পড়ে ভাবলাম, কে মালটা? কীসের এতো তাড়না তার? আমার একটা কম বয়সের ছবি, যার মধ্যে কোনও সেক্সুয়াল ইমপ্লিকেশন নেই। বরং সেই বয়সের একটা সারল্য, একটা সুইটনেস আছে। সেটা দেখে তার এতো কাম জাগার কী হলো যে পাবলিক ফোরামে এমন কমেন্ট লিখেছে!

সব কিছু কি বড় উলঙ্গ বা ওপেন হয়ে যাচ্ছে না? যে কল্পনায় সুনীল, সমরেশ বা বুদ্ধদেব গুহ পড়তে পড়তে ভাললাগার আবেশে আমরা শিহরিত হতাম, তা পাবলিক ফোরামে এতোটা স্পষ্টই। তাও আবার আমাকে নিয়ে! আমরা কি এ ধরনের মানুষের সফট টার্গেট? এ বিষয়ে না হয় অন্য দিন কথা বলব।

বড় অসহায় বোধ করি বর্তমান ও ভবিষ্যত প্রজন্মের কথা ভেবে। আমাদের ছেলেমেয়েরা কি থাকতে পারবে দুধে-ভাতে?

Childhood Whatsapp Instagram
Share it on
আরও যা আছে
আরও খবর
ওয়েবসাইটে আরও যা আছে
আরও খবর
আমাদের অন্যান্য প্রকাশনাগুলি -