SEND FEEDBACK

Cancel
English
Bengali
Cancel
English
Bengali

পাঁচ থেকে ছয় সপ্তাহে ওজন কমানোর বিশেষ ডায়েট ও টিপস

মে ২৪, ২০১৮
Share it on
যে সব বোর্ড পরীক্ষার্থী দীর্ঘদিন বাড়িতে বসে থাকার দরুণ বডিওয়েট বাড়িয়ে ফেলেছে, তাদের ওজন কমানোর ডায়েট টিপস।

আমরা প্রত্যেকেই জানি, পরীক্ষার জন্য পড়াশোনার চাপ এতটাই বেশি ছিল যে, বেশিরভাগ ছেলেমেয়েরাই কিন্তু ছয় থেকে আট মাস ঘরে বন্দি ছিল। কেবল টিউশন ও বাড়ি। অবশ্যই ঠিক সময়ে না খাওয়া কিংবা জাঙ্ক ফুড খাওয়া। এর পরিণতি পাঁচ-সাত কেজি বডিওয়েট বেড়ে যাওয়া। 

এখন তোমাদের স্কুলের গন্ডি ছাড়িয়ে আরও অনেক বড় পরিধির মধ্যে প্রবেশ করতে হবে। যেখানে কনফিডেন্স ও নিজের উপর একান্ত বিশ্বাস রাখা প্রয়োজন। এ ক্ষেত্রে সুঠাম নির্মেদ চেহারা তোমাকে এগোতে অনেকটাই সাহায্য করবে। 

এই বিষয়ে অন্যান্য খবর

আমি আজকে কিছু ডায়েট-এর কথা বলব যাতে কিনা পাঁচ থেকে ছয় সপ্তাহের মধ্যে আগের ফর্মে ফিরে আসতে পারো। অন্ততপক্ষে তিন থেকে পাঁচ কেজি ওজন কমবে। 

ঘুম থেকে উঠেই এক গ্লাস উষ্ণ গরম জল খেতে হবে, আরও বেশি খেতে পারলে ভাল হয়। এতে আমাদের শরীর থেকে টক্সিন বা বিষ ধুয়েমুছে সাফ হয়ে যায়। যার ফলে ত্বক ভাল থাকে আর গ্ল্যামার বাড়ে। হজম ক্ষমতাও বাড়ে, কোষ্ঠকাঠিন্য দূর হয়। এই গরম জলের আরও অনেক উপকারিতা রয়েছে। 

ঘুম থেকে উঠে গরম জল খাওয়ার আধঘণ্টা পরে একটু কাঁচা ছোলা, কয়েকটি আমন্ড এবং আখরোট খেয়ে নাও। 

ব্রেকফাস্ট: ন’টার মধ্যে করতে হবে। কোনওদিন নোনতা সুজি/ উপমা/ পোহা/ রুটি-সবজি/ ইডলি/ ডালিয়ার খিচুড়ি খেতে পারো। আমি কিন্তু কখনওই রেডি টু মেক খাবার সাপোর্ট করি না। টিন ফুড, প্রিসার্ভড ফুড খেতে বলি না। এতে শরীরের অনেক ক্ষতি হতে পারে। আমি সব সময় ন্যাচারাল খাবারের পক্ষপাতী। 

ব্রেকফাস্ট ও লাঞ্চের মাঝখানে একটা বড় শশা খেলে ভাল হয়। কারণ শশা খিদে কমাতে সাহায্য করে। এবং এতে তোমরা ভাত অনেকটা কম খেতে বাধ্য হবে। এই শশা লাঞ্চের মোটামুটি এক ঘণ্টা আগে খাওয়া উচিত। দুপুর একটা নাগাদ লাঞ্চ করবে। 

লাঞ্চ: এক কাপ ভাত, তরকারি, ডাল (যার মধ্যে সব রকমের সবজি দিতে পারো যেমন বিনস, গাজর, টম্যাটো, কাঁচা পেঁপে ইত্যাদি)। এবং এর সঙ্গে একটু টক দই। লাঞ্চে একদিন ভাত খেলে তার পরের দিন খাবে ফ্রুট লাঞ্চ। তাতে থাকবে আপেল, পেয়ারা, শশা, পাকা পেঁপে, বাতাবি লেবু, কালো জাম, জামরুল এবং দই। এর সঙ্গে একটা কি দুটো সেদ্ধ ডিমের সাদা অংশটি খাওয়া যেতে পারে। 

বিকেলের স্ন্যাক্স: বাড়িতে থাকলে চারটে থেকে পাঁচটার মধ্যে এক কাপ লিকার চা, দুধ চা, লেবু চা খেতে পারো। এক কাপ স্কিমড মিল্ক ও তার সঙ্গে দুটো বিস্কুট খাওয়া যেতে পারে। যদি তোমরা বিকেলে বাইরে থাকো তাহলে ঝালমুড়ি, সাদা ধোসা, ইডলি, ধোকলা, খাকড়া, ছোলার চাট, চিঁড়ে ভাজা (শুকনো খোলায় বালিতে ভাজা) খেতে পারো। 

অন্যান্য খাবার, যেগুলো তেলে ভাজা হয় তার থেকে এই শুকনো খাবার অনেক ভাল। যদি তোমরা রাত দশটায় ডিনার করো তাহলে তার ঘণ্টাদুয়েক আগে এই খাবারটা খেতে হবে। তাহলে খিদের উদ্রেক অনেকটাই তোমাদের নিয়ন্ত্রণে থাকবে। 

ডিনার: ডিনারে খাবে দুটো রুটি, তরকারি, ডাল এবং তার সঙ্গে ননভেজও খেতে পারো। এর সঙ্গে স্যালাড খেতে পারো। একদিন যদি ডিনারে রুটি-তরকারি খাও, তার পরের দিন ডিনারে খাবে দু’পিস চিকেন স্যুপ (সব রকমের সবজি দিয়ে) কিংবা ভেজিটেবিল স্যুপ সয়াবিন বড়ি দিয়ে খেতে পারো। এর সঙ্গে স্যালাড কিংবা রায়তা খেতে হবে। 

অর্থাৎ যেদিন তোমরা লাঞ্চে ভাত খাবে সেদিন ডিনারে খাবে চিকেন স্যুপ আর যেদিন তোমরা লাঞ্চে ফ্রুট খাবে, সেদিন ডিনারে খাবে রুটি-তরকারি। কখনওই ব্রেকফাস্ট, লাঞ্চ, টিফিন, ডিনার স্কিপ করবে না। না খেলেই যে বডিওয়েট কমে যায় এই ধারণাটা ভুল। বরং হিতে-বিপরীতও হতে পারে। 

পরের ব্লগে আমি ওজন কমানোর কিছু ফ্রিহ্যান্ড ব্যায়ামের টিপস দেব। তবে মনে রাখবে, ভাল চেহারা মানে, ৭০% ডায়েটের সঙ্গে ৩০% এক্সারসাইজ। আমি ডায়েটের ব্যাপারে তোমাদের যে গাইডলাইন দিলাম, সেটা ফলো করলে খুব তাড়াতাড়ি রেজাল্ট পাবে। 

যদি কারুর কোনও রকমের কোনও জিজ্ঞাস্য থাকে, তারা আমাকে অনলাইনে অর্থাৎ ফেসবুক বা হোয়াটসঅ্যাপ-এ সব সময় পাবে। 

Share it on
আরও যা আছে
আরও খবর
ওয়েবসাইটে আরও যা আছে
আরও খবর
আমাদের অন্যান্য প্রকাশনাগুলি -