SEND FEEDBACK

English
Bengali
English
Bengali

অনেক বছর কেউ চিনত না...কিন্তু বিশ্বাস ছিল সুযোগ আসবেই

অন্তরা মজুমদার | মার্চ ২০, ২০১৭
Share it on
পঙ্কজ ত্রিপাঠী’কে ইন্ডাস্ট্রি চেনে ক্যারেক্টার আর্টিস্ট হিসেবেই। কিন্তু কথাটার মধ্যে ‘আর্টিস্ট’ শব্দটাই তাঁর ক্ষেত্রে বেশি প্রযোজ্য। সামনেই মুক্তি পাচ্ছে ‘আনারকলি অফ আরা’। বার্লিন ফিল্মোৎসবে সম্প্রতি রাজকুমার রাওয়ের ‘নিউটন’ পুরস্কৃত হল। সেই ছবিতেও আছেন পঙ্কজ। অভিনয় নিয়ে কথা বললেন ‘ওবেলা’র সঙ্গে। কথায় কথায় জানালেন, ‘হমার শ্বশুরবাড়ি আছে বঙ্গাল মে! ভবানীপুর’!

‘আনারকলি অফ আরা’তে আপনি কোন চরিত্রে?
একটা ছোট শহরের এক অর্কেস্ট্রা গ্রুপের মালিকের চরিত্র করছি আমি। সে-ও ডান্সার। সঞ্চালনা করে, হোস্ট করে। আনারকলি তারই গ্রুপের লিড সিঙ্গার। চরিত্রটার চলন-বলন সব মফস্‌সলের লোকেদের মতোই।

আপনার চরিত্রটায় কি অনেক ধূসর পরত আছে? 
দেখুন, ২০১৭ সালে সব মানুষই ধূসর। সিনেমা অবশ্য মানুষকে একটু সাদা-কালো বানিয়ে দেয়। কিন্তু বাস্তবে সকলেই একটু গ্রে! আমি সব সময় চেষ্টা করি এমন সব চরিত্র করতে, যাতে অনেক রকম পরত রয়েছে। অভিনেতা হিসেবে গ্রোথটা হয় তাহলে। অনেক সময় এরকমও হয়, যে স্ক্রিপ্টে আমার চরিত্রটায় সেরকম কোনও লেয়ার নেই। তখন নিজের অভিনয়ের মাধ্যমে তাতে শেড যোগ করার চেষ্টা করি। তবে না কাজটা ভাল হবে! ‘আনারকলি...’তেও আমার চরিত্রটা ধূসর। কিছু কিছু কাজ করে তারপর অনুশোচনাও হয়। অনেক সময় হয় কি, সার্ভাইভ করার জন্য অনেক রকম আপস করতে হয়। এই চরিত্রটাও তেমনই।

‘গ্যাংস অফ ওয়াসিপুর’ বা ‘ফুকরে’তে আপনার নেগেটিভ ভূমিকা ছিল। ‘মাসান’ এবং ‘নীল বাটে সন্নাটা’য় আবার একটু কোমল, কমিক চরিত্রে দেখা যাচ্ছে। বদলটা ইচ্ছে করেই?
আমি আসলে বরাবরই এমন ধরনের কাজ করতে চেয়েছিলাম, যেমন আমি এখন করছি। আগের চরিত্রগুলোর তুলনায় পরেরগুলো যেন আলাদা হয়, ইন্টারেস্টিং হয়। দর্শক যাতে সারপ্রাইজ এলিমেন্ট পান। ‘আনারকলি...’তে আমি আবার নেচেওছি! এই প্রথমবার। আমি যে ভাল নাচি, তা নয়। তবে আমি নিজে বিহারে বড় হয়েছি, ফলে এই ধরনের অর্কেস্ট্রা গ্রুপের মাচায় কী হয় না হয়, সেগুলো জানি। তাই নিজের ডান্স পার্টে ওই ব্যাপারগুলোও ঢুকিয়েছি। এগুলোও স্ক্রিপ্টে ছিল না কিন্তু!

অভিনয়ের ব্যাপারে আপনার কোনও রোলমডেল আছেন?
নাহ্‌। কেউ না। আমি আসলে ফিল্মের দ্বারা খুব একটা প্রভাবিত হই না। আমি বরং কবিদের বেশি পছন্দ করি। কবিতা পড়ে মানুষের ইমোশনগুলো বুঝতে ভাল লাগে। 

স্বরা ভাস্করের সঙ্গে এটা আপনার দ্বিতীয় কাজ...।
শি ইজ ব্রিলিয়ান্ট! খুবই পরিশ্রমী অভিনেত্রী। মাঝে মাঝে তো ভয় লাগত আমার, যে ও এত প্রস্তুতি নিচ্ছে, আমি কোনও গড়বড় না করে বসি (হাসি)! আর সবচেয়ে বড় কথা, স্বরা তো একেবারেই আনারকলির মতো নয়। ফলে ওকে এক্সট্রা খাটতে হয়েছে তো বটেই। আমি আবার আনারকলি যেখানকার মেয়ে, সেই ক্ষেত্রটার সঙ্গে পরিচিত। তাই স্বরাকে একটু সাহায্যও করতে পেরেছি। স্টেজ বিহেভিয়ার সম্পর্কিত আর কী।

থিয়েটারের ব্যাকগ্রাউন্ড সম্পর্কে একটু বলুন...।
আমি যেখানে বড় হয়েছি, সেখানে সিনেমা বা আর্ট নিয়ে কারও কোনও কৌতূহল ছিল না, ওসব কেউ শিখতও না। সন্ধেবেলায় কীর্তন শুনত গ্রামের লোকেরা। তারপর একটু বড় হয়ে কলেজে পড়তে পটনা যাই। ওখানে গিয়েই শিল্পী-কবি-লেখকদের সঙ্গে মেলামেশা শুরু হয়। থিয়েটার দেখা শুরু করি। তখনই উৎসাহ বাড়ে। নিয়মিত থিয়েটার করাও শুরু করি তারপর। একটা সময়ের পর নিজের কাজটাকে আরও ছড়িয়ে দিতে সিনেমার মাধ্যমটাকে বেছে নিয়েছিলাম। তবে সেটা খুব সোজা হয়নি। সাত-আট বছর তো কেউ চিনতই না। সকলের দরজায় ঘুরতাম। কিন্তু বিশ্বাস ছিল, যে একটা না একটা সুযোগ আসবেই!

Pankaj Tripathy Bollywood
Share it on
Community guidelines
আরও যা আছে
আরও খবর
ওয়েবসাইটে আরও যা আছে
আরও খবর
আমাদের অন্যান্য প্রকাশনাগুলি -