SEND FEEDBACK

English
Bengali
English
Bengali

পর্দার বাবা-মা নয়, আলাপ করুন হিয়ার আসল পরিবারের সঙ্গে

শাঁওলি, এবেলা.ইন | ফেব্রুয়ারি ১৭, ২০১৭
Share it on
‘দীপ জ্বেলে যাই’ ধারাবাহিকের ছোট্ট সদস্য হিয়া অর্থাৎ কার্তিশা কীভাবে এল টেলিজগতে? এবেলা ওয়েবসাইটকে জানালেন পরিবারের সদস্যরা।

শেষ হয়ে যাচ্ছে ‘জি বাংলা’-র জনপ্রিয় ধারাবাহিক ‘দীপ জ্বেলে যাই’। অন্তিম পর্বের শ্যুটিংও শেষ হয়ে গিয়েছে গতকাল। কিন্তু যার হাত ধরে আবার আর্য ও দিয়ার ভাঙা সম্পর্ক জোড়া লাগল, সেই ছোট্ট হিয়া কীভাবে এসে পড়ল টেলিজগতে? হিয়া অর্থাৎ কার্তিশা ভট্টাচার্যের পিসি অদিতি ভট্টাচার্য জানালেন, ‘হঠাৎ করেই যোগাযোগটা হয়েছিল। আসলে ফেসবুকে আমার ভাইঝির ছবি দেখে পরিচালক সুশান্ত দাসের খুব ভাল লেগে যায়। দিয়ার মেয়ে হিসেবে ওর লুকটা ক্লিক করে যায়। তার পরেই উনি ছবি পাঠাতে বলেন আমাদের। ছবি দেখেই একেবারে সিলেক্ট হয়ে যায়, কোনও অডিশনও দিতে হয়নি।’

মায়ের সঙ্গে কার্তিশা, ছবি: অদিতি

ছোট্ট কার্তিশার এখন চার বছর বয়স। গোখেল মেমোরিয়াল গার্লস স্কুলের জুনিয়র সেকশনে কেজি ওয়ানের ছাত্রী সে যদিও আর কিছুদিনের মধ্যেই কেজি টু-তে উঠবে। প্রায় দু’ মাস আগে ধারাবাহিকের টাইম লিপের প্রোমো থেকেই দর্শকদের মন জয় করে নেয় ছোট্ট কার্তিশা। আর তখনই তা নজরে আসে স্কুলের শিক্ষিকাদের। কার্তিশার এই কাজে স্কুল কর্তৃপক্ষ অত্যন্ত উৎসাহ দেন। অদিতি জানালেন, ‘ম্যামেরা স্পেশাল পারমিশন দিয়েছিলেন যাতে ও সপ্তাহে দু’দিন স্কুলে এসে বাকি দিনগুলো শ্যুটিংয়ে যেতে পারে। স্কুলের এই সাপোর্ট না থাকলে কাজ করাটা সম্ভব হতো না।’ 

পরিবারের সঙ্গে কার্তিশা, ছবি: অদিতি

কিন্তু কার্তিশা নামের অর্থ কী? অদিতি জানালেন এটি এমন একটি বিরল ফুল যা একবারই ফোটে। কার্তিশার পরিবার থাকে হাওড়ার শিবপুরে। দাদু-ঠাম্মি-বাবা-মা-পিসিকে নিয়ে ভরা সংসার, অনেকটা ধারাবাহিকের মতোই। বাবা কণাদ ভট্টাচার্য একটি ফার্মাসিউটিক্যাল কোম্পানির রিজিওনাল হেড আর মা প্রিয়ঙ্কা ভট্টাচার্য গৃহবধূ। দাদু কালীশঙ্কর ভট্টাচার্য এবং ঠাম্মি চন্দ্রা ভট্টাচার্য। পিসির সঙ্গে কার্তিশার ভারি মিষ্টি সম্পর্ক। পিসিকে সে ডাকে ‘লীলা’। এটা কি ডাকনাম? হাসতে হাসতে অদিতি জানালেন, ‘না না ও নিজে থেকেই আমাকে লীলা বলে।’ অদিতি একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে অ্যাকাউন্ট্যান্ট। 

আরও পড়ুন

ঢাকঢোল পিটিয়ে বিদেশিনী বউ এনে লাভ হল কি? 

এই টেলি-অভিনেত্রীর আসল পরিচয় জানেন? লুকটাই পাল্টে ফেলেছেন তিনি

অদিতির সঙ্গে হিয়া, ছবি: অদিতি

এখন তো শ্যুটিং শেষ, এখন কি মন খারাপ কার্তিশার? অদিতি বললেন, ‘আসলে ও শ্যুটিংয়ে খুব এনজয় করত আর দুষ্টুমি করার জন্য ফেমাস ছিল। সবাই ওকে প্রচণ্ড ভালবাসে আর শেষ হয়ে যাওয়ার পরে সবাই খুব কান্নাকাটি করেছে। এনটায়ার কাস্ট অ্যান্ড ক্রু-র প্রত্যেকেই খুব ভালবাসত। কিন্তু এখন তো কিছুদিন একটু রেস্ট দরকার। তার পরে হয়তো আবার কোনও কাজ আসবে। সুশান্তদা মানে ডিরেক্টর তো বলেছেন যে পরের প্রজেক্টেও কার্তিশাকে রাখবেন।’

আপাতত নতুন ক্লাসে ওঠার অপেক্ষায় ছোট্ট কার্তিশা। শ্যুটিংয়ের পাশাপাশি পড়াশোনাটাও তো করতে হবে। 

Deep Jwele Jai Hiya Bengali Television Kartisha Bhattacharya
Share it on
Community guidelines
আরও যা আছে
আরও খবর
ওয়েবসাইটে আরও যা আছে
আরও খবর
আমাদের অন্যান্য প্রকাশনাগুলি -