Nirbikar Acharya

বহুরূপে সম্মুখে বাবা

পার্ক স্ট্রিটে উৎসবে কে করেছ ভিড়?/ বড়দিনে ভিড় ঠেলে ইকির মিকির/ শীত আসে শীত যায়, রঙিন বেলুন/ তাল বুঝে মাথা নাড়ে বছর নতুন।

প্রশ্ন পাঠান

প্রশ্ন পাঠানোর সময় নিজের নাম-ধাম-আতা-পাতা জানাতে ভুলবেন না যেন। পরীক্ষা প্রার্থনীয় ।

এই সপ্তাহের খোলাখুলি (২৮ — ৩ জানুয়ারি, ২০১৯)
পরমপূজ্য শ্রী শ্রী ঠাকুর রামকৃষ্ণ পরমহংসদেব নিজে বলে গিয়েছেন— "টাকা মাটি, মাটি টাকা।" আমার প্রশ্ন, সব রামকৃষ্ণ আশ্রমগুলিতে ভর্তির সময় টাকা না নিয়ে ব্যাগ ভর্তি মাটি কেন নেওয়া হয় না?
সোহম হোর, স্থান জানাননি
আচার্যমত : মাটিই তো নেয় মিশন। তাল তাল কাঁচা মাটি। ১০-১২ বছরে সেগুলোকেই পাকিয়ে বাজারে ছাড়ে। তার ছাত্রদের কথাই বলছি।
পড়ি খুব, কিন্তু মন বসে না। একটা দাওয়াই দিন বাবা।
সুজয় দে, বাটানগর
আচার্যমত : মন তো বসে না, তাকে বসানো হয়। আপনি বরং ক’দিন একটু কম পড়ে দেখুন।
স্বামী বেশ মোটাসোটা। কিন্তু খিদে বেড়েই চলেছে। কী করে বোঝাই, এতে ওর চেহারায় আরও মেদ জমবে! যত বোঝাই উড়িয়ে দেয়। আপনিই কোনও উপায় বলুন বাবা।
পৃথা ঘোষ, আরামবাগ
আচার্যমত : আপনিও দেদার খেতে শুরু করুন ক’দিন। স্বামীকে দেখিয়েই বেশি খান। দেখবেন, ক্রমেই কমছে আহ্লাদ।
পাড়ায় সবাই 'টিকটিকি' বলে খ্যাপায়। বিরক্ত লাগে। কী করি?
নিত্যানন্দ ভট্টাচার্য, আলমপুর
আচার্যমত : কেন বলে, সে কথা কি জানতে চেয়েছেন কখনও? যদি চেহারার জন্য বলে, তা হলে এক কথা। আর আপনার কোনও স্বভাবের কারণে যদি এমন নামকরণ হয়ে থাকে, তবে তার উৎস খুঁজে বের করুন।
আমার চেহারা হিরো-সুলভ। ছোটমাসি চান আমি সিনেমায় নামি। বাড়ির লোকের আপত্তি। আমি কী করব বলে দিন। কনফিউজড লাগছে।
বিপুল সাহা, বেহালা
আচার্যমত : কেন শুধু ছোটমাসি চান— সে রহস্য আগে ভেদ করুন। তার পরে দূর করা যাবে কনফিউশন।
কাসুন্দি বানানোর রেসিপি জানেন?
অনন্দা রায়,, বহরমপুর
আচার্যমত : পুরনো না নতুন? এক এক কাসুন্দির এক এক রেসিপি কি না।
পাপ্পুকে মোদীর আন্ডারএস্টিমেট করাটা কি ঠিক হয়েছিল?
শীতল নাথ, নাগেরবাজার
আচার্যমত : নাঃ। কারোকেই আন্ডারএস্টিমেট করাই ঠিক নয়। ঠেলা তো টের পেলেন মোদীজি। বুঝে গিয়েছেন— পাপ্পু ক্যান ডান্স।
অনলাইন ডেটিং অ্যাপ কি আদৌ বিশ্বাসযোগ্য? টাকা খরচ করা কি আদৌ ঠিক হবে?
সুব্রত বিশ্বাস, হৃদয়পুর
আচার্যমত : টাকা খরচ করলে ডেটিং যে বেটিং হয়ে যায়, তা মনে রাখবেন দয়া করে।
কলকাতায় কি কোনও সিক্রেট সোসাইটি আছে, প্রেতচর্চা করে কেউ?
প্রণয় বসু, নরেন্দ্রপুর
আচার্যমত : কলকাতা এক রহস্যময় শহর। উনিশ শতক থেকেই এখানে গুপ্ত সমিতি ছিল। আজ যে নেই, কী করে জানা যাবে! ‘গুপ্ত’ হলে তো জানার কথাই নয়।
বড়ি-ফুলকপি-কইমাছ, এই তিনের যে ডেডলি কম্বিনেশন, তা বউকে বোঝানো মুশকিল। কারণ বউ কাঠবাঙাল। কিন্তু শীতে তো ভালমন্দ খেতে মন চায়! কী করি বলুন তো।
অপরূপ হালদার, বাঁকুড়া
আচার্যমত : শীতের ‘ভালমন্দ’ মানে কই-কপি-বড়ি? কিস্যু বলার নেই! আপনি তো খেতেই জানেন না মশাই। আপনার স্ত্রীই ঠিক করেছেন পাত্তা না দিয়ে।