SEND FEEDBACK

English
Bengali

ইডেনে তিনে তিন জেতার অপেক্ষা

নিজস্ব সংবাদদাতা | এপ্রিল ২১, ২০১৭
Share it on
যুদ্ধের আগে কেকেআরকে এগিয়ে রাখছেন কার্তিক-ফিঞ্চরা, পাঠানের মুখে ইতিবাচক থাকার অঙ্গীকার...

যুদ্ধের চব্বিশ ঘণ্টা আগে প্রতিপক্ষের উদ্দেশে গোলা-বারুদ বর্ষণ নেই। খুল্লামখুল্লা শিঙা ফোঁকাফুঁকি না হোক, প্রচ্ছন্ন তর্জন-গর্জনও নেই। গুজরাত লায়ন্স শিবির যেন কেমন গুটিয়ে রয়েছে। আজ, শুক্রবার ইডেনে বল গড়ানোর আগে থেকেই কলকাতা নাইট রাইডার্সকে ফেভারিট বেছে নিচ্ছেন গুজরাতের ক্রিকেটারেরা!
বৃহস্পতিবার দুপুরে বাইপাসের ধারে টিমহোটেলের একটি অনুষ্ঠানে দীনেশ কার্তিক বলছিলেন, ‘‘এই ম্যাচে অ্যাডভ্যান্টেজ কেকেআর। ওরা ঘরের মাঠে খেলবে। স্পিন আক্রমণটা দুর্দান্ত। ওরাই এগিয়ে থাকবে।’’ একই অনুষ্ঠানে অ্যারন ফিঞ্চ বলছিলেন, ‘‘কেকেআর দলের ভারসাম্য খুব ভাল। সব বিভাগে দক্ষ ক্রিকেটার রয়েছে। আমরা আগের ম্যাচে ওদের কাছে হেরেই গিয়েছিলাম।’’


টুর্নামেন্টের প্রথম পাঁচটি ম্যাচের মধ্যে চারটিতে হেরে গতবারের আইপিএল রানার্স দল এতটাই কোণঠাসা যে, যুদ্ধের দামামাই যেন বাজাতে ভুলে গিয়েছে। কে বলবে এই দলে একজন ব্রেন্ডন ম্যাকালাম, সুরেশ রায়না বা রবীন্দ্র জা়ডেজা খেলেন? নিজের দিনে যাঁরা একা হাতে প্রতিপক্ষকে শেষ করে দিতে পারেন।
ইডেনে গুজরাতের সামনে হ্যাটট্রিক আটকানোর লড়াই। কেকেআরের সামনে আবার হ্যাটট্রিক করার হাতছানি। তফাত বলতে, পয়েন্ট টেবিলে সকলের শেষে থাকা গুজরাত হেরে গেলে টানা তিন ম্যাচে পরাজয়ের জ্বালা সহ্য করতে হবে। আর কেকেআর জিতলে ঘরের মাঠ ইডেনে টানা তিনটি জয় হবে। সব মিলিয়ে টানা চার ম্যাচে জয়ী হবেন গৌতম গম্ভীররা। ক্রিকেটারেরা সকলেই প্রায় ফর্মে। দলে ঢোকার লড়াইটা এমনই প্রবল যে, এমনকী, শাকিব-আল-হাসান’কেও ডাগ আউটে বসে থাকতে হচ্ছে।


ফিল্ডারদের ক্যাচ ফেলা, স্লগ ওভারে বোলারদের রান দেওয়া— সব দুশ্চিন্তাই তাই যেন পিছনের সারিতে চলে যাচ্ছে। বৃহস্পতিবার প্র্যাক্টিস শুরুর আগে সাংবাদিক বৈঠকে ইউসুফ পাঠান বলছিলেন, ‘‘সকলেই ক্যাচ ফেলা নিয়ে কথা বলছেন। আমরা এটা নিয়ে খাটছি। নিশ্চয়ই সমস্যাটা কাটিয়ে উঠব। ডেথ ওভারে বোলাররা হয়তো রানও খরচ করছে। কিন্তু আমাদের ড্রেসিংরুমে প্রচুর ইতিবাচক ব্যাপারও রয়েছে। আমরা সেগুলোতেই জোর দিতে চাই। নেতিবাচক চিন্তাভাবনা নিয়ে বসে থাকতে চাই না।’’


শুক্রবার যে পিচে গুজরাতের বিরুদ্ধে নাইটদের পরীক্ষা, তাতে ভাল ঘাস রয়েছে। পেসারদের জন্য সাহায্য থাকবে। তবে বড় রান উঠবে। ইডেনে প্রথম দুই ম্যাচের মতোই। বোর্ডের পিচ কমিটির পূর্বাঞ্চলীয় প্রতিনিধি আশিস ভৌমিক বলছিলেন, ‘‘আগের দুই ম্যাচের পিচে নয়, এই ম্যাচ হবে তার পাশের উইকেটে। তবে পিচের চরিত্র কার্যত একইরকম থাকবে। আদর্শ টি-টোয়েন্টি পিচ।’’


কেকেআরের কাছে দুশ্চিন্তার সবচেয়ে বড় কারণ হতে পারেন যিনি, বৃহস্পতিবার নেটে তাঁকে একটার পর একটা বল গ্যালারিতে ওড়াতে দেখা গেল। আগের ম্যাচে ৪৪ বলে ৭২ রান করেছিলেন। কলকাতায় এসেছেন ছেলে রিল’কে নিয়ে। তিনি, ব্রেন্ডন ম্যাকালাম। প্রাক্তন নাইটের ব্যাটিং ঝড় নিয়ে চিন্তিত ইউসুফও। বলছিলেন, ‘‘প্রার্থনা করছি যেন আমাদের বিরুদ্ধে ও রান না পায়।’’
নাইট-ভক্তরাও হয়তো মনে মনে সেই প্রার্থনা শুরু করে দিয়েছেন।

Gujrat Lions KKR
Share it on
আরও যা আছে
আরও খবর
ওয়েবসাইটে আরও যা আছে
আরও খবর
আমাদের অন্যান্য প্রকাশনাগুলি -