SEND FEEDBACK

English
Bengali
English
Bengali

পঞ্চাশোর্ধ শিক্ষক স্কুলেই নাবালিকা ছাত্রীর মাথায় দিলেন সিঁদুর, তার পরেই ধুন্ধুমার কাণ্ড

নিজস্ব প্রতিবেদন, মালদহ, এবেলা.ইন | মে ১৯, ২০১৭
Share it on
অবিবাহিত শিক্ষকের কাণ্ডে গণ্ডগোল। পুলিশকে ছুটে আসতে হল পরিস্থিতি সামাল দিতে।

তখন ছাত্র-ছাত্রীরা বসেছে মিড ডে মিল খেতে। খাওয়ার পরে এক ছাত্রী কলে থালা-বাটি ধোয়ার সময়ে হঠাৎই স্কুলের শিক্ষক ধনপতি মণ্ডল সেখানে এসে জোর করে এক ছাত্রীর সিঁথিতে ঘষে দিলেন সিঁদুর। তার পরে কান্নাকাটি। বিক্ষোভ, ঘেরাও। পুলিশের ডেকে আনতে হল।

এমনই কাণ্ড ঘটল মালদহের ভিমটোলা পুলিনটোলা জুনিয়ার হাইস্কুলে। পঞ্চাশোর্ধ শিক্ষক ধনপতি মণ্ডল অবিবাহিত। প্রেমে পড়েছিলেন এক নাবালিকা ছাত্রীর। তাকে জোর করে সিঁদুর দেওয়াই নয়, শাঁখাও পরানোর চেষ্টা করেন তিনি। এমনকী মালাও নিয়ে এসেছিলেন। সেসব আর পরাতে পারেননি। ধনপতির এই প্রেম নিবেদনের বহরে বিপদে পড়লেন অন্যান্য শিক্ষকরা।

‘সিঁদুর-দানের’ পরেই স্বাভাবিক কারণেই কান্নাকাটি জুড়ে দেয় ছাত্রীটি। বিপদ দেখে স্কুল থেকে চম্পট দেন ধনপতিবাবু। কিন্তু গ্রামে ও ছাত্রীটির বাড়িতে খবর যেতেই ছাত্রীটির পরিবারের লোকজন ও বাসিন্দারা ছুটে আসেন স্কুলে।

অন্যান্য শিক্ষকদের ঘিরে ধরে বিক্ষোভ দেখাতে থাকেন গ্রামবাসীরা। অফিস ঘরে তাঁদের তালাবন্দি করে রাখায় স্কুলের মধ্যেই আটকে থাকতে হয় শিক্ষকদের। সেখানে তাঁদের মারধর করা হয় বলেও অভিযোগ।

ঘটনাস্থলে পৌঁছয় ভূতনি থানার পুলিশ। এরপর প্রধান শিক্ষক প্রণব মণ্ডল সহ অন্যান্য শিক্ষকদের উদ্ধার করে। 

 তবে এক নাবালিকা ছাত্রীর সাথে এই ধরনের ঘটনা ঘটে যাওয়ায় আতঙ্কিত অন্যান্য ছাত্রীরা। এই ঘটনার পর ভূতনি থানায় লিখিত অভিযোগ জানিয়েছেন ওই ছাত্রীর মা। পুলিশ এই ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে। 

Malda Vermilion
Share it on
Community guidelines
আরও যা আছে
আরও খবর
ওয়েবসাইটে আরও যা আছে
আরও খবর
আমাদের অন্যান্য প্রকাশনাগুলি -