SEND FEEDBACK

English
Bengali
English
Bengali

কাছাকাছি কংগ্রেস, দলের ভিতরে-বাইরে বার্তা মমতার

নিজস্ব প্রতিবেদন | মে ২০, ২০১৭
Share it on
রাজ্যের শাসকদল আপাতত নিশানা করতে চাইছে সিপিএম তথা বাম এবং বিজেপি’কে। কংগ্রেস সম্পর্কে একটু ‘নমনীয়’ মনোভাবই নিতে চলেছে তৃণমূল।

কংগ্রেস এবং তৃণমূল আবারও কাছাকাছি আসতে পারে। রাষ্ট্রপতি নির্বাচনকে কেন্দ্র করে বিজেপি-বিরোধী শিবিরের তত্পরতায় সেই ইঙ্গিত ছিলই। শুক্রবার দলের ভিতরে এবং বাইরে তা আরও নির্দিষ্ট করে দিয়েছেন তৃণমূলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

রাজ্যের শাসকদল আপাতত নিশানা করতে চাইছে সিপিএম তথা বাম এবং বিজেপি’কে। কংগ্রেস সম্পর্কে একটু ‘নমনীয়’ মনোভাবই নিতে চলেছে তৃণমূল। এদিন দলের সাংসদ, বিধায়ক, জেলা সভাপতি ও পুরসভার পদাধিকারীদের বৈঠকে ওই বার্তাই দিয়েছেন তৃণমূলনেত্রী। বৈঠকে মমতা জানিয়েছেন, কংগ্রেসের বিষয়টি তিনি ‘দেখে নেবেন’। আপাতত সিপিএম এবং বিজেপি’র বিরুদ্ধেই রাজনৈতিক প্রচার জোরদার করতে দলীয় নেতাদের নির্দেশ দিয়েছেন তিনি। ওই বৈঠকের পর এদিন বিধানসভায় অধিবেশনকক্ষে বিরোধী দলনেতা-সহ কংগ্রেস বিধায়কদের সঙ্গে কুশল বিনিময়ে মমতার মনোভাব আরও স্পষ্ট হয়েছে।

রাষ্ট্রপতি নির্বাচন নিয়ে ইতিমধ্যেই দিল্লি গিয়ে কংগ্রেস সভানেত্রী সনিয়া গাঁধী এবং সহ-সভাপতি রাহুলের সঙ্গে বৈঠক করেছেন মমতা। তারপর এদিন দলীয় বৈঠকে তৃণমূলনেত্রীর বার্তায় স্পষ্ট, রাজনৈতিক বৃত্তে তাঁরা ফের কাছাকাছি আসতে পারেন। ২০০৯ লোকসভা এবং ২০১১ সালে বিধানসভা নির্বাচনে জোট করে লড়েছিল কংগ্রেস এবং তৃণমূল।
পঞ্চায়েত ভোটের আগে এদিনের বৈঠকে রাজনৈতিক অভিমুখ স্থির করে দিয়েছেন মমতা। দলীয় নেতাদের তিনি জানিয়েছেন, রাজ্যজুড়ে সব কর্মসূচিই আপাতত নিতে হবে বিজেপি ও সিপিএমের বিরুদ্ধে। সোশ্যাল মিডিয়ায় ওই দুই প্রতিপক্ষকে নিশানা করার নির্দেশ দিয়েছেন তৃণমূলনেত্রী। বিধানসভার অকাল নির্বাচন নিয়েও দলের বিধায়ক-নেতাদের সতর্ক করেছেন মমতা। জানিয়েছেন, মোদী-সরকার যা খুশি করতে পারে। তাই সকলকে প্রস্তুত থাকতে হবে।

দলনেত্রীর নির্দেশের পর রাজ্যস্তরেও জোটের ছবি বদলের সম্ভাবনা নিয়ে আলোচনা শুরু হয় তৃণমূলের অন্দরে। তা আরও জোরালো হয়েছে বিধানসভায় বিরোধী দলনেতা আব্দুল মান্নানের সঙ্গে মুখ্যমন্ত্রীর আলাপচারিতায়। অধিবেশনের নির্ধারিত কাজ শেষ হওয়ার পর পরিষদীয়মন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়কে নিয়ে কিছুটা ‘বেনজির’ভাবেই কংগ্রেসের আসনের কাছাকাছি যান মুখ্যমন্ত্রী। মান্নানের শারীরিক অবস্থার খোঁজখবর নেন। খাওয়াদাওয়া নিয়েও পরামর্শ দেন মুখ্যমন্ত্রী। মান্নানও সেই সুরেই দীর্ঘদিনের রাজনৈতিক সতীর্থের সঙ্গে সৌজন্য বিনিময় করেন। ততক্ষণে কংগ্রেসের বিধায়কেরাও জড়ো হয়েছেন মমতার চারপাশে। সেই ভিড়ে ছিলেন তৃণমূলনেত্রীর কট্টর সমালোচকেরাও। সৌজন্যরক্ষায় বাম সদস্যেরা পাশে দাঁড়িয়ে সাক্ষী হয়েছেন মিনিট পাঁচেকের ওই দৃশ্যের।

এদিনের মমতা-বার্তা নিয়ে কংগ্রেসেও আলোচনা শুরু হয়েছে। দলের এক প্রবীণ বিধায়কের কথায়, ‘‘রাজনীতিতে কোনও সম্পর্ক চিরস্থায়ী নয়। এবার হাত ধরতে হবে তৃণমূলের।’’ পরে অবশ্য বিষয়টি নিয়ে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ‘‘এ তো করেই থাকি। সৌজন্য! অসুস্থ হয়ে গিয়েছিলেন না! তারপর তো আর কথা হয়নি।’’
আসন্ন রাজ্যসভা নির্বাচনে নয়া সমীকরণের প্রভাব পড়তে পারে বলে মনে করছেন কংগ্রেস ও তৃণমূলের অনেকে। তাঁদের মতে, জোট ভাঙতে পারে কংগ্রেস-সিপিএমের।

এদিন পুরনো রাজ্য কমিটি অপরিবর্তিত রেখে নতুন কমিটি ঘোষণা করেন মমতা।

Congress TMC Mamata Banerjee
Share it on
Community guidelines
আরও যা আছে
আরও খবর
ওয়েবসাইটে আরও যা আছে
আরও খবর
আমাদের অন্যান্য প্রকাশনাগুলি -