SEND FEEDBACK

English
Bengali
English
Bengali

চিন্তায় রেখেছে সিবিআই, শুক্রবারের দিকে তাকিয়ে গোটা তৃণমূল। পাঁচ বড় বদলের জল্পনা

নিজস্ব প্রতিবেদন, এবেলা.ইন | মে ১৮, ২০১৭
Share it on
বার বার তিন বার বৈঠক পিছিয়ে গিয়েছে। দলীয় ভাবে কোনও কারণ না জানানো হলেও রাজনৈতিক মহল বলছে সিবিআই-এর পদক্ষেপের অপেক্ষাতেই থমকে বৈঠক।

এখনও পর্যন্ত যা ঠিক রয়েছে তাতে নতুন কোর কমিটি গঠনের জন্য ১৯ মে বৈঠকে বসছে তৃণমূল কংগ্রেস। গত ২১ এপ্রিল ছিল তৃণমূল কংগ্রেসের সাংগঠনিক নির্বাচন। নেতাজি ইন্ডোর স্টেডিয়ামে নতুন করে দলের চেয়ারপার্সন নির্বাচিত হন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তার ঠিক পাঁচ দিন আগে নারদকাণ্ডে দলের এক ডজন নেতা, মন্ত্রীর বিরুদ্ধে এফআইআর করে সিবিআই। সাংগঠনিক নির্বাচনের দিন তৃণমূলনেত্রী জানান ক’দিন পরে ২৯ এপ্রিল হবে ওয়ার্কিং কমিটির ঘোষণা। কিন্তু সেই বৈঠক পরে বাতিল হয়। ঠিক হয় ৬ মে ঘোষণা করা হবে। ফের তা বদলে ঠিক হয়, ১৯ মে ওয়ার্কিং কমিটি ঘোষণা হবে।

নারদকাণ্ডের জেরেই কি বারবার ওয়ার্কিং কমিটি গঠন পিছিয়ে দিচ্ছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়? জল্পনা রাজনৈতিক মহলে। এক বার, দু’বার নয় তিন বার পিছিয়ে গিয়েছে ওয়ার্কিং কমিটি গঠনের দিনক্ষণ।

বারবার দিন বদল দেখে রাজনৈতিক মহলের একাংশের বক্তব্য, নারদকাণ্ডে সিবিআই তদন্তের জেরেই কমিটি গঠনের দিন বদলাতে হচ্ছে তৃণমূল কংগ্রেসকে। ওই মহলের দাবি, সিবিআই জিজ্ঞাসাবাদের জন্য কবে কোন নেতাকে তলব করবে জানা নেই। কোনও নেতাকে জিজ্ঞাসাবাদের পরে আটক করবে কিনা তা নিয়েও জল্পনা রয়েছে। অতীতে সারদা বা রোজভ্যালি তদন্তে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য গিয়ে গ্রেফতার হতে হয়েছে দলের একাধিক নেতাকে। তাই এ বার রয়েসয়ে পদক্ষেপ করতে চাইছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ১৯ মে-তেও আদৌ তৃণমূল কংগ্রেস ওয়ার্কিং কমিটি ঘোষণা করবে কিনা তা নিয়েও যথেষ্ট সন্দেহ প্রকাশ করে ওই রাজনৈতিক মহল। তবে এখনও পর্যন্ত তৃণমূল সূত্রে জানা গিয়েছে শুক্রবার বৈঠক হচ্ছেই।

আরও পড়ুন—

নমাজ পড়াতে গিয়ে আক্রান্ত বরকতি, টিপু সুলতান মসজিদে গোলমাল। দেখুন ভিডিও

বৈঠকে কী কী বদল আসতে পারে তা নিয়ে অনেক রকম জল্পনা চলছে তৃণমূল কংগ্রেসে। দেখে নিন তৃণমূল শিবিরে সব থেকে আলোচিত পাঁচটি জল্পনা কী কী—

১। অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় মূল সংগঠনে অভিষিক্ত হবেন। এখনও পর্যন্ত তিনি দলের শাখা সংগঠন যুব তৃণমূল কংগ্রেসের সভাপতি। তবে ইতিমধ্যেই মূল দলের অনেক দায়িত্বই তিনি পালন করছেন।

২। ৮ জুন রাজ্যসভার ছ’টি আসনে নির্বাচন। তৃণমূল কংগ্রেসের হাতে রয়েছে চারটি আসন। সিপিএমের সীতারাম ইয়েচুরি, কংগ্রেসের প্রদীপ ভট্টাচার্য এবং তৃণমূলের ডেরেক ও’ব্রায়েন, সুখেন্দুশেখর রায়, দোলা সেন ও দেবব্রত বন্দ্যোপাধ্যায়ের রাজ্যসভায় মেয়াদ ফুরোচ্ছে ১৮ অগস্ট। এই ছ’টি আসনেই কি তৃণমূল কংগ্রেস লড়াই করবে? নাকি একটি আসন বিরোধীদের ছেড়ে দেবে? ২২ তারিখে শুরু হবে মনোনয়ন। হাতে সময় কম। সিদ্ধান্ত জানা যেতে পারে শুক্রবারের বৈঠকে।

৩। তৃণমূল সূত্রে খবর, দেবব্রত বন্দ্যোপাধ্যায়কে ফের রাজ্যসভায় পাঠাতে চান না দলনেত্রী। তাঁর জায়গায় কাকে প্রার্থী করা হবে? বাকি দু’টি আসনে লড়াই হলে কারা প্রার্থী হবেন? দলের কেউ নাকি অন্য ক্ষেত্রের কাউকে রাজ্যসভায় পাঠাতে চাইবেন মমতা?

৪। জেলায় জেলায় দলের কিছু সাংগঠনিক রদবদল হতে পারে। মন্ত্রিসভাতেও কিছু রদবদল হতে পারে। বেশ কয়েকজন মন্ত্রীকে বাড়তি সাংগঠনিক দায়িত্ব দেওয়া হতে পারে। তবে মন্ত্রিসভায় নতুন করে কাউকে আনা হবে না বলেই মনে করা হচ্ছে।

৫। সব থেকে গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্ন নারদকাণ্ডে অভিযুক্তদের নিয়ে কী করবেন নেত্রী? আগেই তাঁদের পাশে দাঁড়ানোর বার্তা দিয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তবে সারদায় অভিযুক্ত এক মন্ত্রীর গুরুত্ব কমিয়ে দিতে পারেন তৃণমূলনেত্রী।

এ সবই জল্পনা। কারণ, তৃণমূল কংগ্রেসের উপর মহলের নেতারাও নেত্রীর পরিকল্পনা সম্পর্কে অবহিত নন। বৃহস্পতিবারই দিল্লি থেকে ফিরেছেন মমতা। ফিরেছেন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ও। রাত পোহালেই কোর কমিটির বৈঠকে ডাক পেয়েছেন জেলার মেজ নেতারাও। সকলের মনেই টান টান উত্তেজনা— আরও বড় কিছু বদল হবে না তো?

TMC CBI Mamata Banerjee
Share it on
Community guidelines
আরও যা আছে
আরও খবর
ওয়েবসাইটে আরও যা আছে
আরও খবর
আমাদের অন্যান্য প্রকাশনাগুলি -