SEND FEEDBACK

English
Bengali
English
Bengali

ভিক্ষায় পাওয়া কয়েন নিয়ে বিপাকে বৃদ্ধা

পত্রলেখা বসু চন্দ্র, এবেলা.ইন | মে ১৯, ২০১৭
Share it on
বর্ধমানের রায়ান গ্রামের বাসিন্দা, সহায় সম্বলহীন লগনি মুর্মু। নিজের বলতে কেউ নেই। ভিক্ষা করেই দু’মুঠো অন্ন যোগায়। সকালে ভিক্ষের ঝুলি নিয়ে বের হন। আবার সূর্য ডুবলে ঘরে ফেরেন।

ঝুলিতে এক টাকা, দু’ টাকার কয়েন। ভিক্ষা করে জমিয়ে সঞ্চয় করেছিলেন ১২০ টাকা। আর এই সঞ্চিত অর্থ নিয়ে যখন ব্যাঙ্কে জমা দিতে যান, তখন চক্ষু চড়কগাছ। মনে হচ্ছিল মাথায় আকাশ ভেঙ্গে পড়েছে। কারণ, ব্যাঙ্ক কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে যে, তারা খুচরো নেবে না।

বর্ধমানের রায়ান গ্রামের বাসিন্দা, সহায়-সম্বলহীন লগনি মুর্মু। নিজের বলতে কেউ নেই। ভিক্ষা করেই দু’মুঠো অন্ন যোগান। সকালে ভিক্ষের ঝুলি নিয়ে বের হন। আবার সূর্য ডুবলে ঘরে ফেরেন।

একদিন সকালে ১২০ টাকার কয়েন নিয়ে স্থানীয় ব্যাঙ্ক অফ ইন্ডিয়ার ব্রাঞ্চে, তাঁর অ্যাকাউন্টে জমা দিতে গেলে, ব্যাঙ্ক কর্তৃপক্ষ তা জমা নিতে অস্বীকার করে। অনেক কাকুতি মিনতি করলেও ব্যাঙ্ক কর্তৃপক্ষ কোনও ভাবেই খুচরো জমা নিতে রাজি হয়নি। ফলে ওই খুচরো পয়সা নিয়ে ব্যাঙ্কের সামনে বসে পড়েন বৃদ্ধা। তখন স্থানীয়রাই তাঁর পাশে এসে দাঁড়ান।

স্থানীয়রাও ব্যাঙ্কে গিয়ে অনুরোধ করেন। কিন্তু তা সত্ত্বেও ফিরিয়ে দেয় ব্যাঙ্ক। স্থানীয়দের অভিযোগ, ব্যাঙ্কে টাকা তুলতে গেলে অনেক সময়েই খুচরো নিতে বাধ্য করা হয় গ্রাহকদের। অথচ গ্রাহকদের কাছ থেকে কোনও ভাবেই খুচরো জমা নেওয় হয় না।

ব্যাঙ্ক কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, খুচরো রাখার ভল্ট খালি না থাকায় খুচরো জমা নেওয়া বন্ধ রাখা হয়েছে। টাকা জমা না দিতে পারায় দুশ্চিন্তায় ওই বৃদ্ধা। এই খুচরো কয়েন কিভাবে কাজে লাগাবেন, বুঝে উঠতে পারছেন না তিনি। কারণ, বেশিরভাগ দোকানেই কয়েন নিতে চাইছে না। আবার ব্যাঙ্কও তা জমা নিচ্ছে না।

দেখুন ভিডিও—

Beggar Burdwan Old Woman Coin
Share it on
Community guidelines
আরও যা আছে
আরও খবর
ওয়েবসাইটে আরও যা আছে
আরও খবর
আমাদের অন্যান্য প্রকাশনাগুলি -