SEND FEEDBACK

English
Bengali
English
Bengali

স্কুলে টাকা নয়ছয় প্রধান শিক্ষকের, প্রতিবাদী শিক্ষকের ‘শাস্তি’

নিজস্ব প্রতিবেদন, এবেলা.ইন, বালুরঘাট | মে ১৮, ২০১৭
Share it on
দীর্ঘ পাঁচ মাস বিদ্যালয়ে শিক্ষকতা করেও বেতন পাচ্ছেন না দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার তপন ব্লকের গুরাইল গ্রাম পঞ্চায়েতের বেরুলি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক লক্ষ্মণ ঘোষ। বেতন না পাওয়ার ফলে অনাহারে দিন কাটছে শিক্ষক ও তাঁর পরিবারের।

স্কুলের ক্লাসরুমের জন্য বরাদ্দ অর্থ নিজেই আত্মসাৎ করেছেন প্রধান শিক্ষক— এমনই দুর্নীতির বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করার অপরাধে বেতন পাচ্ছেন না সরকারি স্কুলের শিক্ষক।

দীর্ঘ পাঁচ মাস বিদ্যালয়ে শিক্ষকতা করেও বেতন পাচ্ছেন না দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার তপন ব্লকের গুরাইল গ্রাম পঞ্চায়েতের বেরুলি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক লক্ষ্মণ ঘোষ। বেতন না পাওয়ার ফলে অনাহারে দিন কাটছে শিক্ষক ও তাঁর পরিবারের। অসুস্থ বাবা-মায়ের চিকিৎসা ও পরিবারের নুন-ভাত জোটাতে বাড়ির আসবাবপত্র, এমনকী স্কুলে যাতায়াতের মোটর বাইকও বিক্রি করে দিতে হয়েছে তাঁকে।

প্রতিবাদী শিক্ষক লক্ষ্মণ ঘোষ

শেষ পর্যন্ত কোনও উপায় না দেখে বালুরঘাটের প্রাথমিক বিদ্যালয় সংসদ ভবনে পরিবার-সহ ধরনায় বসেন লক্ষ্মণ ঘোষ। বুধবার সকালে, বাবা চৈতন্য ঘোষ, মা আভা দেবী, স্ত্রী কৃষ্ণা ঘোষ ও নাবালক দুই ছেলেমেয়েকে নিয়ে ধরনা দিতে শুরু করেন তিনি। তাঁর দাবি একটাই— স্কুলের ক্লাসরুমের জন্য বরাদ্দ টাকা আত্মসাৎকারী প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে আইনানুগব্যবস্থা নিতে হবে এবং তাঁর প্রাপ্য বেতন চালু করতে হবে।


লক্ষ্মণ ঘোষের বাবা-মা

এ দিন লক্ষ্মণ ঘোষ অভিযোগ করে বলেছেন বিদ্যালয়ের ভারপাপ্ত প্রধান শিক্ষক, সরকার থেকে বরাদ্দ টাকায় ঘর তৈরি না করেই তা আত্মসাৎ করেছেন। মাস কয়েক আগে সেই ঘটনার প্রতিবাদ করতে গিয়ে তিনি অসুস্থ হয়ে পড়েছিলেন। অসুস্থ থাকাকালীন লিখিত ভাবে ছুটির আবেদন করলে প্রধান শিক্ষক চক্রান্ত করে সেই আবেদন পত্র জমা না দিয়ে, উল্টে তাঁকে অনুপস্থিত দেখিয়েছেন। যে কারণে তাঁর বেতন বন্ধ করে দিয়েছে প্রশাসন। সুস্থ হয়ে টানা পাঁচ মাস ধরে বিদ্যালয়ে শিক্ষকতা করলেও এখনও তাঁকে বেতন দেওয়া হয়নি। অথচ সরকারি টাকা আত্মসাৎকারী প্রধান শিক্ষক দিব্য প্রতি মাসের বেতন পেয়ে যাচ্ছেন।

দুর্নীতির বিরুদ্ধে সরব হওয়ার কারণেই বেতন পাচ্ছেন না বলে প্রতিবাদী শিক্ষক অভিযোগ করেছেন। বেতনের দাবিতে প্রশাসনের নিকট একাধিক বার আবেদন জানান হলেও, আজ পর্যন্ত তার কোনও ব্যবস্থাই নেওয়া হয়নি। উলটে, দিনের পর দিন শুনানিতে হাজিরার নাম করে তাকে এস আই অফিসে ডেকে নিয়ে হয়রানি করা হচ্ছে বলেও লক্ষ্মণবাবু জানিয়েছেন।

লক্ষ্মণ ঘোষের স্ত্রী তৃষ্ণা ঘোষ


দক্ষিণ দিনাজপুর জেলা প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পরিদর্শক উদয়ন ভৌমিক


দেখুন ভিডিও

Lakshman Ghosh School Balurghat Corruption
Share it on
Community guidelines
আরও যা আছে
আরও খবর
ওয়েবসাইটে আরও যা আছে
আরও খবর
আমাদের অন্যান্য প্রকাশনাগুলি -