নিঃশব্দে শ্যালিকাকে ‘খুন’! জামাইবাবুকে বেধড়ক মার জনতার

নিজস্ব প্রতিবেদন, কলকাতা, এবেলা.ইন | ১০ জানুয়ারি, ২০১৮, ১২:৩০:২৮ | শেষ আপডেট: ১০ জানুয়ারি, ২০১৮, ১২:২৮:৫৯
বুধবার রাতে বেহালার ব্রজেন মুখোপাধ্যায় রোডের বাসিন্দা কাকলি দাসের রহস্যজনক মৃত্যু হয়। মূক এবং বধির ওই মহিলার মুখে রক্তের দাগও ছিল। নিজের মা, দিদি এবং জামাইবাবুর সঙ্গে বাড়িতে থাকতেন কাকলিদেবী। তিন বছর আগে কাকলিদেবীর দিদি-জামাইবাবু ওই বাড়িতে এসে থাকতে শুরু করেন। বুধবার বিকেলে কাকলিদেবীর মৃত্যুর কথা জানতে পারেন এলাকাবাসী। আচমকাই শববাহী গাড়ি এবং ডেথ সার্টিফিকেট জোগাড় করে নিয়ে আসেন কাকলিদেবীর দিদি কেয়া মল্লিক। তখনই সন্দেহ হয় প্রতিবেশীদের। মৃতদেহে আঘাতের চিহ্ন দেখে তাঁদের সন্দেহ দৃঢ় হয়। অভিযোগ, সম্পত্তি হাতিয়ে নিতেই তিন বছর ধরে প্রতিবন্ধী কাকলিদেবী এবং তাঁর মাকে মারধর করত অভিযুক্ত কেয়া মল্লিক এবং তাঁর স্বামী প্রবীর মল্লিক। প্রতিবেশীদের থেকে খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে আসে পুলিশ। মৃতদেহ ময়নাতদন্তের জন্য পাঠানো হয়। খুনের অভিযোগে মৃতার দিদি-জামাইবাবুকে বেধড়ক মারধর করে জনতা। মৃতার মাও জানিয়েছেন, বড় মেয়ে এবং জামাই তাঁদের উপরে অত্যাচার করতেন।
Community guidelines