ঝোপে লুকিয়েও বাঁচল না তাজা ছেলে, বাড়ি থেকেই জালে আরাবুল

প্রসেনজিৎ সাহা, ভাঙড়, এবেলা.ইন | ১২ মে, ২০১৮, ১০:১৬:২৫ | শেষ আপডেট: ১২ মে, ২০১৮, ১০:১৬:১৯
শুক্রবার ভাঙড়ে জমি কমিটির মিছিলে বোমা ও গুলি চালানোর অভিযোগ ওঠে এলাকার তৃণমূল নেতা আরাবুল ইসলাম ও তার অনুগামীদের বিরুদ্ধে। ঘটনায় গুলিবিদ্ধ হয়ে মৃত্যু হয় হাফিজুল মোল্লা নামে বছর তিরিশের এক যুবকের। এই ঘটনায় আরাবুলের উপর চটে যান রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী তথা তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তড়িঘড়ি আরাবুলকে গ্রেফতারের নির্দেশ দেন তিনি। আর মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশ পাওয়ার ঘণ্টা চারেকের মধ্যেই আরাবুল ইসলামকে গ্রেফতার করে পুলিশ। আরাবুলের সঙ্গে তার আরও এক সঙ্গীকে গ্রেফতার করে পুলিশ।মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশের পর কার্যত দলীয় কর্মী সমর্থক ও অনুগামীদের কাছে ক্ষোভ প্রকাশ করেন আরাবুল। আরাবুলকে গ্রেফতারের জন্য বারুইপুর জেলা পুলিশের পুলিশ সুপার অরিজিৎ সিনহার নেতৃত্বে বিশাল পুলিশ বাহিনী রওনা দেয় ভাঙড়ে। রাত সাড়ে আটটা নাগাদ কাশিপুর থানা থেকে আরাবুলের গাজিপুরের বাড়ির উদ্দেশ্যে রওনা দেন পুলিশ কর্মীরা। সমগ্র পরিস্থিতির উপর নজর রাখতে ডিআইজি প্রেসিডেন্সি রেঞ্জ ভরতলাল মিনা ও আই জি দক্ষিণবঙ্গ সঞ্জয় সিং আসেন কাশিপুর থানায়। অন্যদিকে আরাবুলের বাড়িতে দীর্ঘক্ষণ তল্লাশি চালিয়েও আরাবুলকে পুলিশ খুঁজে না পেয়ে অবশেষে তার মোবাইল ফোনের টাওয়ার লোকেশন দেখে তার বাড়ির পিছনে মাঠের মাঝখানে একটি ঝোপের মধ্যে থেকে রাত সাড়ে দশটা নাগাদ আরাবুলকে গ্রেফতার করেন পুলিশ কর্মীরা। আরাবুলের সঙ্গে গ্রেফতার করা হয় তার আরও এক সঙ্গীকে। ধৃত দু’জনকেই শুক্রবার রাতে নিয়ে যাওয়া হয় বারুইপুর থানায়। শনিবার আরাবুলকে বারুইপুর মহকুমা আদালতে তোলা হবে।
Community guidelines